স্বপন কুমার কুন্ডু: ‘রূপপুরের বিদ্যুতে বদলে যাবে মঙ্গা কবলিত উত্তর জনপদের জীবনযাত্রা। রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র বাস্তবায়ন হলে উত্তরের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হবে। বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত হয়ে বিশেষ করে উত্তরবঙ্গের মানুষই সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবেন। শিল্প কারখানা এবং সেচ কাজ অথবা নিজের ঘরসহ সব কাজেই প্রতিটি প্রতিষ্ঠান এই বিদ্যুৎ কাজে লাগাতে পারবে। পরিবেশের ওপর কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না। পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিতে কাজ করছে বাংলাদেশ। দেশের প্রথম পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র হতে ২০২৩ সালে প্রথম ইউনিট এবং ২০২৪ সালে দ্বিতীয় ইউনিট হতে উৎপাদিত বিদ্যুত যাবে জাতীয় গ্রীডে। সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে এই প্রকল্পে। এখানে ছাড় দেয়ার কোনো সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (১৯ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের (আরএনপিপি) দ্বিতীয় ইউনিটের রিয়্যাক্টর পাওয়ার ভেশেল (পরমাণবিক চুল্লি) স্থাপনের কার্যক্রম উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তিনি।

উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে ২০২১ সাল থেকে ২০৪১ সাল পর্যন্ত যে পরিপ্রেক্ষিত পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে তা বাস্তবায়নে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বিরাট ভূমিকা রাখবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগিতার জন্য রাশিয়া ও দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র শুধু একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র না। পরমাণু ব্যবহার করা খুবই কঠিন। পরমাণু মানুষের কল্যাণের জন্য। বাংলাদেশ শান্তির জন্য এটা ব্যবহার করছে। এ প্রকল্প নির্মাণকালে সার্বিক নিরাপত্তার দিকে সবচেয়ে বেশি নজর দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎকেন্দ্রের পারমাণবিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, পরিবেশ, জনস্বাস্থ্যসহ সবকিছু মাথায় রেখেই নির্মাণ কাজ চলছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোভিড পরিস্থিতির সময়ও রাশিয়ার বিশেষজ্ঞরা প্রকল্পের কাজ বন্ধ করেনি। নিরাপত্তাসহ সব বিভাগই কাজ অব্যাহত ছিল। সবার আন্তরিকতার কারণেই অত্যন্ত কঠিন এই কাজ আমরা করতে পেরেছি। এ কারণেই আজকের অগ্রগতি হয়েছে। আজকে সত্যিকারের একটা গুরুত্বপূর্ণ দিন। জলবায়ু সম্মেলনের যে সিদ্ধান্তটা ছিল, জলবায়ু পরিবর্তনের যে ঝুঁকিটা এতে পরিবেশের কোনো ধরনের কোনো প্রভাব পড়বে না। সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ উৎপন্ন করে মানুষকে দিতে পারব। আমরা এখনো জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে মানুষকে রক্ষা করে যাচ্ছি। এই পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হবে তা অত্যন্ত পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ হবে। এটা আমাদের কোনো ক্ষতিই করবে না বরং মানুষ স্বচ্ছ একটা বিদ্যুৎ পাবে। মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে একটি বড় অবদান রেখে যাবে। সেলক্ষ্য রেখেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

সভাপতিত্ব করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন নির্মাণ সংস্থা রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশনের (রোসাটম) মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ। রিঅ্যাক্টর ভেসেল স্থাপনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুমতি চান আলেক্সি লিখাচেভ। প্রধানমন্ত্রী অনুমতি দেওয়ার পর রিয়্যাক্টর ভবনে এটি স্থাপন করা হয়। রিঅ্যাক্টর ভবনে এসময় ছিলেন প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর। ক্রেনের মাধ্যমে রিঅ্যাক্টরটি নির্দিষ্ট স্থানে বসানো হয়। এসময় সবার কন্ঠে বার বার ধ্বনিত হয় জয়বাংলা-জয়বাংলা।

মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বলেন, আরএনপিপি বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দিচ্ছেন। রিঅ্যাক্টর প্রেশার ভ্যাসেল (আরপিভি) স্থাপনের মধ্যদিয়ে আরএনপিপির দ্বিতীয় ইউনিটে বড় ধরনের পারমাণবিক যন্ত্রপাতি স্থাপনের কাজ প্রায় শেষ হবে।

জানা যায়, রিঅ্যাক্টর প্রেশার ভেসেল হলো পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মূলযন্ত্র। এর ভেতরে ইউরেনিয়াম থেকে শক্তি উৎপাদন হয়, যা কাজে লাগিয়ে তৈরি হয় বিদ্যুৎ। রিঅ্যাক্টর প্রেশার ভেসেল পারমাণবিক জ্বালানি সংরণ করে এবং সেই সঙ্গে তা থেকে তেজস্ক্রিয় দ্রব্য বেরিয়ে যাতে পরিবেশ দূষণ করতে না পারে, তার জন্য প্রতিবন্ধকতার কাজও করে।

পারমাণবিক চুল্লিপাত্র স্থাপনের আগে রিঅ্যাক্টর ভবনের বিভিন্ন স্তরের অবকাঠামোসহ সংশ্লিষ্ট পর্যায়গুলো এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। ৩৩৩ দশমিক ৬ টন ওজনের ভিভিইআর-১২০০ রিঅ্যাক্টর ভেসেল প্রস্তুত করতে দুই বছরের বেশি সময় লেগেছে। এই রিঅ্যাক্টর ভেসেল কৃষ্ণসাগর ও সুয়েজ খাল হয়ে ১৪ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশের মোংলা বন্দরে আসে। এতে সময় লাগে দুই মাসের বেশি।

রূপপুর প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন। কারিগরি ও আর্থিক সহায়তায় রয়েছে রাশিয়া। প্রকল্প বাস্তবায়নে জনশক্তি প্রশিণসহ মোট ব্যয় হচ্ছে ১২.৬৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বর্তমানে প্রকল্পে ৩৩ হাজার লোক কাজ করছেন। এদের মধ্যে সাড়ে ৫ হাজার বিদেশি নাগরিক রয়েছেন।

এরআগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বছরের ১০ অক্টোবর প্রথম ইউনিটে আরপিভির উদ্বোধন করেন। এটির কাজ সম্পন্ন হলে, বাংলাদেশ হবে পারমাণবিক জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের অধিকারী বিশ্বের ৩৩তম দেশ। এখন পর্যন্ত প্রথম ইউনিটের অগ্রগতি হয়েছে প্রায় ৭৫ শতাংশ।

ঈশ্বরদীর রূপপুরে রাশিয়ার সর্বাধুনিক প্রযুক্তি, আর্থিক ও প্রকল্প বাস্তবায়নসহ সার্বিক সহযোগিতায় নির্মিত হচ্ছে এ পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। এটি বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ও ব্যয় বহুল প্রকল্প। শেখ হাসিনার সরকারের অগ্রাধীকার প্রকল্পের মধ্যে এটি অন্যতম। এ প্রকল্পে রাশিয়ার উদ্ভাবিত সর্বশেষ প্রযুক্তি থার্ডপ্লাস জেনারেশনের ভিভিইআর ১২০০ মডেলের রিঅ্যাক্টর। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশনের (রোসাটম) প্রকৌশল শাখা অ্যাটমোস্ত্রয় এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। প্রতিটি ইউনিটে ১২০০ মেগাওয়াট করে মোট ২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির স্থায়িত্ব ৬০ বছর ধরা হয়েছে এরপর মেয়াদ ২০ বছর বাড়িয়ে ৮০ বছর করা যাবে। পুনরায় এক্সটেশন করে আরও ২০ বছর বাড়ানোর ব্যবস্থা করা যাবে বলে জানা গেছে। সব মিলিয়ে মোট ১০০ বছর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদন করতে পারবে। প্রকল্পের লাইফ টাইম (পুরো সময়) জ্বালানি ইউরেনিয়াম সরবরাহ করবে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় জ্বালানি সরবরাহ কোম্পানি টিভিইএল। আগামী বছর অক্টোবরের মধ্যে রাশিয়া থেকে জ্বালানি নিয়ে আসার পরিকল্পনা রয়েছে। জ্বালানি আসার দুই মাসের মধ্যে লোডিং করতে হবে।

২০২৩ সালে রূপপুরের ১২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার প্রথম ইউনিট থেকে এবং ২০২৪ সালে দ্বিতীয় ইউনিট থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ করার লক্ষ্য নিয়েই রূপপুর প্রকল্পে মহাকর্মযজ্ঞ চলছে।

Previous articleমস্কোর ইরানের ড্রোন ব্যবহার সামরিক ‘দেউলিয়াপনার’ লক্ষণ: জেলেনস্কি
Next articleকলাপাড়ায় অপপ্রচারের অভিযোগে আ.লীগের সংবাদ সম্মেলন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।