সদরুল আইন: দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। শুক্রবার বিকালে নয়াপল্টনের বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে তারা মিছিল বের করে। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে মিছিলটি নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে ফকিরাপুল হয়ে আবার নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

মিছিলে ঢাকা মহানগর যুবদল, ছাত্রদল ও মৎস্যজীবী দলের নেতাকর্মী অংশ নেন। এ সময় তারা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে নানা স্লোগান দেন।

মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘সরকার আইন, বিচার, প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন ধ্বংস করেছে। গণমাধ্যমকে ভয়ভীতি ও চাপ প্রয়োগের মাধ্যমে কব্জায় রাখার চেষ্টা করছে। সব গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হয়ে গেছে বলেই আমাদেরকে রাজপথেই অবস্থান নিতে হবে। মিডনাইট সরকারের প্রধান শেখ হাসিনা প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। তাই ‘গণতন্ত্রের মা’ দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য রাজপথই আমাদের একমাত্র ঠিকানা।’

তিনি বলেন, জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে আনতে রাজপথেই গণতান্ত্রিক শক্তির উদ্বেল অভিযাত্রা নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়া গণতন্ত্রের মুক্তি আসবে না। দেশের জনগণ চিরদিনের জন্য তাদের নাগরিক স্বাধীনতা হারাবে।

রিজভী বলেন, একদলীয় কর্তৃত্ববাদী শাসন এখন আরও নিষ্ঠুর চেহারা নিয়ে জনগণের কাঁধে চেপে বসেছে। দেশবাসীর জীবন ও নিরাপত্তা এখন গভীর সংকটাপন্ন। সাধারণ মানুষ গুমের ভয়ে, বিচারবহির্ভূত হত্যার ভয়ে, গায়েবি মামলার ভয়ে শঙ্কা ও আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। এই নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতি চলতে দেয়া যায় না। বিদ্যমান অন্ধকার অমানিষার অবসান ঘটাতে হবে। এ জন্যই সব গণতান্ত্রিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আপসহীন নেত্রী খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে হবে।