নারীর নিরাপত্তায় পাড়া-মহল্লায় প্রতিরোধের ডাক রিজভীর

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নারীদের নিরাপত্তার জন্য দেশজুড়ে গ্রামে-পাড়া-মহল্লায় প্রতিরোধ কমিটি গঠনের আহ্বান জানিয়েছেন রুহুল কবির রিজভী।
রোববার সকালে রাজধানীতে এক মানববন্ধনে নারী নির্যাতনের কয়েকটি ঘটনা তুলে ধরে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব এ আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, “আজকে মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম যাদের বাবারা এই দেশ রক্ষা করার জন্য পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করেছে তাদেরকে প্রস্তুত থাকতে হবে; গ্রামে গ্রামে, পাড়া-মহল্লায় তাদেরকে কমিটি গঠন করতে হবে।

“ছাত্রলীগের হাত থেকে মা-বোনকে বাঁচানোর জন্য, মেয়েদের বাঁচানোর জন্য সবাইকে আজকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এটা প্রতিহত করতে হবে। এই স্বাধীন দেশ তারা দখল করেছে, অন্যের ইশারায় আজকে আওয়ামী লীগ দখল করে আজকে অনাচার করছে, লুটপাট করছে, নারীর সম্ভ্রমহানি করছে। জনগণের ঐক্য ছাড়া, জনগণের ব্যারিকেড ছাড়া, এটা প্রতিহত করা ছাড়া আজকে জনগণের নিস্তার নেই।”

‘ক্ষমতাসীনরা জনগণের পাশে নেই’

‘মানুষের পাশে কেউ নেই, আওয়ামী লীগ আছে’- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এরকম বক্তব্যে প্রতিক্রিয়ায় রুহুল কবির রিজভী বলেন, “মানুষের দুঃখ-দুর্দশা, করোনায় মানুষের আক্রান্ত হওয়া, দেশে কোনো স্বাস্থ্য সেবা নেই। মানুষ হাহাকার করছে। এই ঢাকা শহরে ৬৮ ভাগ মানুষ এখন কর্মহীন, এদের কর্ম নাই।

“এর সমস্ত অবদান শেখ হাসিনার। আর তিনি বলেন কিনা আওয়ামী লীগ আছে মানুষের পাশে। আওয়ামী লীগ লুটপাটের জন্য আছে, ত্রাণ আত্মসাতের জন্য আছে, টাকা লুটপাটের জন্য। মানুষের পাশে। কিন্তু জনগণকে প্রকৃত সেবা দেওয়ার জন্য নেই।”

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্তদের যে ত্রাণ দেওয়া হয় সেই ত্রাণ পাওয়া যায় আওয়ামী লীগ নেতার খাটের নিচ থেকে, ঘরের পালার ভেতর থেকে, মাটির নিচ থেকে।

“৫০ লক্ষ লোককে আড়াই হাজার করে টাকা দেবেন। সেই টাকার পাঁচশ একশ হাজার টাকা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মোবাইলে ফ্লেক্সি হয়ে যায়- এই কারণে আওয়ামী লীগ মানুষের পাশে আছে।”

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে ‘সারাদেশে নারী ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে ও অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে’ এই মানববন্ধন হয়।