কাগজ ডেস্ক: কুয়েতে আল-আহলিয়া কোম্পানিতে কাজ করেন বাংলাদেশি ইসমাঈল হোসেন। গত দু’বছর ধরে ওই কোম্পানিতে কাজ করছেন তিনি। কিন্তু গত ২০ মার্চ হঠাৎ কোম্পানির ভবনের ৩ তলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ইসমাঈল।
ইসমাঈলের সহকর্মীদের থেকে জানা যায়, কোম্পানিটি শ্রমিকদের ৪ মাস ধরে কোনো বেতন দেওয়া হয় না।ইসমাঈল দেশ থেকে আসার সময় ৭ থেকে ৮ লাখ সুদে টাকা নিয়ে কুয়েতে আসে। ঠিক মতো বেতন না পাওয়ায় পরিবারের সঙ্গেও মনোমালিন্য চলছে তার।এ জন্য রাগে ক্ষোভে এই পথ বেছে নিতে পারে বলে জানান তারা।
জানা গেছে, কুয়েতের আল হাসাবিয়া এলাকায় অবস্থিত ওই কোম্পানিতে প্রায় পাঁচ হাজার শ্রমিক কর্মরত। এদের মধ্যে প্রায় এক হাজার শ্রমিক রয়েছেন বাংলাদেশি।গত কয়েকমাস ধরে বেতন না পাওয়ায় এসব শ্রমিকদের জীবন বিপন্ন হয়ে উঠেছে।
আহত ইসমাঈল বর্তমানে আল হাসাবিয়ার ফরওয়ানিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার দুই পা ভেঙে গেছে এবং মারাত্মক আঘাত পেয়েছেন তিনি। গতকাল থেকে ইসমাইলের অবস্থার অবনতি হলে তাকে নিবিড় পরিচর্যায় (আইসিইউ) নেওয়া হয়। তার বাড়ি ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায়।
কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের দূতালয় প্রধান (শ্রম) মো. আনিসুজ্জামান ইসমাঈলের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। কী কারণে এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখার চেষ্টা করছেন তিনি।
প্রসঙ্গত, উচ্চ দামে ভিসা কিনে কিংবা দালালদের প্ররোচনায় পড়ে গত কয়েক বছর ধরে ইসমাঈল হোসেন এর মতো বহু বাংলাদেশি কুয়েতে গেছেন।কিন্তু দেশ থেকে উচ্চমূল্যে সুদের টাকা নিয়ে এসে চাহিদানুযায়ী বেতন না পাওয়ায় তারা আত্মহত্যার মতো পথ বেছে নিচ্ছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সংবাদ মাধ্যমে এসব ঘটনায় ভুক্তভোগীরা সুষ্ঠু সমাধান চাইলেও কোনো প্রতিকার পাননি বলে অভিযোগ রয়েছে।
এছাড়া শ্রমিকদের আকামা, বাসস্থান, চিকিৎসা এবং খাবার সংকটসহ নানা কারণে মানসিকভাবে হতাশাগ্রস্থ হওয়ায় আত্মহত্যার মতো পথ বেছে নিচ্ছেন তারা।