বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সিরিজের ১ম টেস্টের ২য় দিনশেষে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে স্বাগতিক বাংলাদেশ দল। উইন্ডিজদের বিপক্ষে এগিয়ে আছে ৩৫৫ রানে।

সিরিজের ১ম টেস্টের ১ম ইনিংসে মেহেদি মিরাজের ক্যারিয়ারের ১ম সেঞ্চুরিতে, ৪৩০ রান সংগ্রহ করে স্বাগতিক বাংলাদেশ। জবাব দিতে নেমে দিনশেষে ২ উইকেট হারিয়ে ৭৫ রান সংগ্রহ করেছে উইন্ডিজরা।

১ম দিনের ৫ উইকেটে ২৪২ রান নিয়ে ব্যাট করতে নামে স্বাগতিকরা। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস ব্যাট হাতে দলকে লিড এনে দেয়ার স্বপ্ন দেখান। তবে দিনের শুরুতেই ফিরে যান লিটন। তার সংগ্রহ ৩৮ রান।

এরপর মেহেদি মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে ৬৭ রানের জুটি গড়েন সাকিব। তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২৫তম ফিফটি। দীর্ঘদিন পর টেস্টে ফেরা টাইগার অলরাউন্ডার আউট হন ৬৮ রান করে।

তবে অন্যপ্রান্তে অবিচল মিরাজ। দেখান নিজের ব্যাটিং দক্ষতা। দুই টেল এন্ডার তাইজুল ও নাঈম হাসানকে সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে নেন দলকে। তাইজুলের সঙ্গে ৪৪ রানের জুটি গড়েন মিরাজ। এরপর নাঈমের সঙ্গে গড়েন ৬৭ রানের জুটি। এই জুটিতে চারশ’র কোঠা পেরোয় টাইগাররা।

তবে তাইজুল ও নাঈম ফিরে গেলেও, পথ হারান নি মিরাজ। দুর্দান্ত ব্যাটিং করে তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের ১ম সেঞ্চুরি। ১৬৮ বলে ১০৩ রানের দারুণ ইনিংসটি সাজান ১৩টি বাউন্ডারির সাহায্যে। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি যখন আউট হন, দল তখন রান পাহাড়ে। ৪৩০ রানের বড়সড় সংগ্রহ পায় মুমিনুল হকের দল।

এরপর ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদের মুখে পড়ে উইন্ডিজরা। দলীয় মাত্র ১১ রানেই আউট হয়ে যান ওপেনার জন ক্যাম্পবেল। তার সংগ্রহ মাত্র ৩ রান। মুস্তাফিজের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন তিনি।

এরপর আবারো কাটার মাস্টারের অ্যাটাক। এবার তার শিকার শেন মজিলি। মাত্র ২ রানে তাকে ফেরান মুস্তাফিজ। দলের রান তখন ২৪।

এরপর ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট দলের হাল ধরেন। তাকে সঙ্গ দেন বনার। দুজনে মিলে গড়েছেন অনবদ্য ৫১ রানের জুটি। ব্র্যাথওয়েট অপরাজিত আছেন ৪৯ রানে। বনারের সংগ্রহ ১৭ রান।