বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জাতীয় দলের আলোচিত ক্রিকেটার নাসির হোসেন গত রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিয়ে করেছেন। রাজধানীর উত্তরার একটি রেস্টুরেন্টে বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

নাসিরের স্ত্রীর নাম তামিমা তাম্মি। তিনি পেশায় একজন কেবিন ক্রু। কাজ করেন বিদেশি একটি এয়ারলাইন্সে।

দুজনের চেনাজানা অনেক আগে থেকেই। গেল বছর সেপ্টেম্বরে ইনস্টাগ্রামে একটি মেয়েকে নিয়ে পোস্ট দিয়েছিলেন নাসির। যদিও মিনিট দশেক পর পোস্টটা ডিলিটও করে দিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত তার সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

তবে বিয়ের খবর ছাপিয়ে নাসিরের স্ত্রীকে জড়িয়ে নতুন বিতর্ক শুরু হয়েছে। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু পোস্ট এবং ছবি প্রকাশ করা হয়েছে যেখানে দাবি করা হচ্ছে, এগারো বছর আগে অন্য জায়গায় বিয়ে হয় তামিমার। সেই ঘরে আট বছরের একটি মেয়ে সন্তানও রয়েছে। কিন্তু স্বামীকে তালাক না দিয়েই ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে করেছেন তামিমা!

এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নিচ্ছেন তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব হাসান। তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি জিডি করেছেন।

উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাও (ওসি) শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্ত্রীর এমন কর্মকাণ্ডে হতবাক রাকিব জানান, তার ৮ বছরের একটি মেয়ে আছে। ২০২০ সালের মার্চেও তারা পুরো পরিবার নিয়ে রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে থেকেছেন।

রাকিব বলেন, এখনও আমাদের ডিভোর্স হয়নি। কোনো নোটিশ ছাড়া কীভাবে আমার স্ত্রী ৮ বছরের বাচ্চাকে ফেলে অন্য একজনকে বিয়ে করলো সেটাই আমি বুঝতে পারছি না।

এদিকে, রাকিব হাসান ও ক্রিকেটার নাসির হোসেনের একটি ফোন রেকর্ড মিলেছে যেখানে রাকিবকে ফোন করে জিডি করার ব্যাপারটি ধামাচাপা দিতে বলেন নাসির। রাকিবের প্রশ্ন ছিল আপনি কি তামিমা সম্পর্ক সব কিছু জানেন? উত্তরে নাসির হোসেন বলেন তার সব কিছু জেনেশুনেই আমি তাকে বিয়ে করেছি। তার বাচ্চা আছে, তার আগেও বয়ফ্রেন্ড ছিল সবকিছুই আমি জানি। আপনার বৌ আপনার সাথে ভালো থাকলে নিশ্চই আপনার ১১ বছরের সংসার ভেঙ্গে আমার কাছে চলে আসতো না।

রাকিব হাসান ও তামিমার কাবিননামায় দেখা যায় ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তিন লক্ষ টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে হয়। রাকিবের দাবি, গেল ১১ বছরে তার স্ত্রীর পড়াশোনা থেকে শুরু করে জব সবক্ষেত্রেই তিনি সাহায্য করেছেন।

এই বিষয়ে জানতে ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তার স্ত্রী তামিমা সুলতানার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

এর আগে সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে খেলাধুলা সম্পর্কিত একটি বড় গ্রুপ ক্রিকসেল-CricCell। এর সদস্য সংখ্যা ১ লাখ ৭৫ হাজারের বেশি। ক্রিকসেল গ্রুপের অ্যাডমিন ও মডারেটর ৯ জন। এর মধ্যে এম.এ. রোমান নামে একজন মডারেটর রয়েছেন। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) তিনি গ্রুপে সকাল ৮টা ৩৪ মিনিটে একটি পোস্ট করেন। সেখানে তামিমার আগে বিয়ে হয়েছিল বলে দাবি করা হয়।
এম.এ. রোমানের পোস্টে বলা হয়,

‘কি এক্টা ভয়াবহ অবস্থা !!

এগারো বছরের বিবাহিত স্বামীকে তালাক না দিয়েই ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে করেছে তামিমা নামের মেয়েটা এবং তার আগের ঘরে আট বছরের একটা মেয়েও নাকি আছে। তার সমস্ত পড়ালেখার খরচ চালিয়ে তাকে এ পর্যন্ত এনেছেনই তার আগের স্বামী। সে তাকে এত ভালোবাসেন যে এতকিছুর পরও তার বউ ফিরে এলে সে তাকে মেনে নিবে ।

এখন আমার কথা হলো নাসির জেনেশুনে তাকে বিয়ে করল। অথচ তার যে আইন অনুযায়ী ডিভোর্সই হয়নি সেটা খতিয়ে দেখল না! মাই গড! আমি ভাবছি শুধু বাচ্চাটার কথা! সব ঠিক হলেও তার জীবনটা ধোঁয়াশায় পড়ে গেল।

শেষ খবর নিউজটা সত্যি: সন্দেহ হলে কল রেকর্ডটা শুনবেন: https://m.facebook.com/groups/CricketKhor/permalink/3753460954766910/”

ওই পোস্টের চার ঘণ্টার পর এম.এ. রোমান আরেকটি পোস্ট দেন। সেখানে বলা হয়;

‘অবশেষে কল রেকর্ড শুনে নিশ্চিত হলাম, ক্রিকেটার নাসিরের বউ সম্পর্কে আমার দেয়া তথ্য ১০০% সত্যি।

একটা মেয়ের করা পোস্টের উপরই আমি আপনাদের তথ্য দিয়েছিলাম যে নাসিরের বউয়ের আগের স্বামী, সন্তান সবই আছে অনেকে সেটা অবিশ্বাস করেছিলেন, যেটা স্বাভাবিক। আমি নিজেও একটু দ্বিধায় ছিলাম যে নিউজটা ফেক না হয়। কারণ এখন অহরহ এমন গুজব ছড়ায়। তবে এখন হাফ ছেড়ে বাঁচলাম।

এটা গুজব ছিল না। নাসির হোসেন নিজের মুখে তার আগের স্বামীকে ফোন করেছে এবং কথা বলেছে এসব বিষয়ে, যে তার বউয়ের যে আগের বয়ফ্রেন্ড, হাজবেন্ড এবং মেয়ে আছে সে জেনেই তাকে বিয়ে করেছে। তাই এ বিষয়ে আর আমার বা আপনার কারোরই বলার কিছু নাই। জাস্ট ৮ বছরের বাচ্চা মেয়েটার জন্য খারাপ লাগছে।

যারা নাসির এবং তার স্ত্রীর আগের স্বামীর কল রেকর্ড শুনতে চান তাদের জন্য লিঙ্ক। একদম সব স্পষ্ট বুঝতে পারবেন …ধন্যবাদ সবাইকে।

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=266884474808537&id=100044609585345

এই বিষয়ে এটাই শেষ পোস্ট আর কোনো পোস্ট হবে না এবং এপ্রুভও হবে না। এটাও পোস্ট করতাম না জাস্ট আপনাদের যে নিউজটা দিছি তার সত্যতা জানানো আমার দায়িত্ব ছিল মনে হয় তার জন্য এটা করলাম। সবাই ভালো থাকবেন।’

এর আগে ফেসবুকে রাইসা ইসলাম বাবুনি নামে একটি আইডি থেকে দেওয়া বিভিন্ন পোস্টে নাসিরের স্ত্রীর পূর্বেকার স্বামীকে নিয়ে বিভিন্ন ছবি ও অডিওক্লিপ তুলে ধরা হয়।

শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দেওয়া পোস্টে বাবুনি নামে ওই নারীর দাবি, যে ব্যক্তিটি বসার ঘরে (রাইসা ইসলাম বাবুনি’র) বসে আছেন তিনি নাসিরের স্ত্রীর সাবেক স্বামী। রাকিব নামের ওই ব্যক্তি বাবুনির কাছে বলেছেন, তামিমা এবং তার বিবাহবিচ্ছেদ হয়নি এবং তাদের আট বছরের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। বাবুনি তার পোস্টে আরও উল্লেখ করেন, রাকিব তামিমাকে এখনো পাগলের মতো ভালোবাসেন।

একই আইডি থেকে প্রায় ১৪ ঘণ্টা পর শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) আরেকটি পোস্ট দেওয়া হয়। সেখানে দাবি করা হয়, নাসির আগে থেকেই তামিমার পূর্বেকার বিয়ের কথা জানতেন এবং সব জেনেও তিনি সম্পর্ক ভাঙার জন্য অনুরোধ করেন। এই পোস্টের সঙ্গে তামিমা, একটি শিশু এবং স্বামী দাবি করা ওই ব্যক্তির একাধিক ছবি দেখা যায়। এই পোস্টের সঙ্গেই একটি ভিডিও সংযুক্ত করে দেওয়া হয়। যেখানে পাওয়া যায় একটি অডিও ক্লিপ। এই অডিও ক্লিপটি তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব এবং ক্রিকেটার নাসিরের বলে দাবি করা হয়।

ফেসবুকে পাওয়া কলরেকর্ডটি পর্যবেক্ষণ করে জানা যায়, একজন ব্যক্তি ক্রিকেটার নাসির পরিচয় দিয়ে রাকিব নামে ওই ব্যক্তিকে ফোন করেন। ফোন করে নাসির বলেন, ভাই আপনি এগুলা কী শুরু করলেন, আপনি নাকি জিডি করছেন? পরে রাকিব নামের ব্যক্তি জবাব দেন, হ্যাঁ করেছি। এরপর নাসিরকে রাকিব জিজ্ঞাসা করেন, আপনি কি তামিমা সম্পর্কে সব জানেন? নাসির জানান, হ্যাঁ আমি সব জানি। এরপর ওই ব্যক্তি পাল্টা প্রশ্ন করেন, কী জানেন। উত্তর আসে, সবটাই জানি, তামিমার বাচ্চা আছে, বিয়ে হয়েছে, অলক নামে একজন বয়ফ্রেন্ডও ছিল। আমি জেনেশুনেই বিয়ে করেছি। আপনি কি চান না তামিমা খুশি হোক?

এভাবেই কথোপকথনটি এগিয়ে যায়। যেখানে নাসির পরিচয় দানকারী জিডির ব্যাপারে প্রশ্ন করেন। অন্যদিকে রাকিব দাবি করেন তার সঙ্গে আট বছরের সংসার থাকা সত্ত্বেও কেন তামিমা কোনো কাগজপত্র (তালাক) দেননি। রাকিব নাসিরকে প্রশ্ন করেন, আপনি কেন আমাকে ফোন করলেন, আমাকে তো তামিমার ফোন করার কথা। রাকিব নামে ওই ব্যক্তি এও দাবি করেন, আপনি (নাসির) যে ফ্ল্যাটে থাকছেন সেখানকার ফার্নিচারগুলোও আমার সংসারের। এরপর আরও কিছু কথা কাটাকাটি হওয়ার পর রাকিব আসরের নামাজ আছে বলে কলটি কেটে দেন।

বিয়ে তালাক নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সৃষ্টি হওয়া ধোঁয়াশার ব্যাপারে নাসির-তামিমা এবং রাকিবের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানতে রাইসা এবং ক্রিকসেলের অ্যাডমিনদের সঙ্গে সময় নিউজের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়। ক্রিকসেলের এম.এ. রোমানসহ দুইজন অ্যাডমিন সাড়া দেন। তবে তারা বিস্তারিত জানতে রাইসার সঙ্গে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন। কিন্তু রাইসা সাড়া দেননি। পরে ক্রিকসেলে যোগাযোগ করলে তারা জানান, ইতিমধ্যে রাইসাকে অনেকেই নক করেছে। এ কারণে হয়তো তিনি মোবাইল বন্ধ রেখেছেন।

Previous articleটিকা নিলেন জাতীয় দলের ৮ ক্রিকেটার
Next articleকরোনায় আরও কমল মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।