মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
Homeখেলাধুলালজ্জার হারের প্রাপ্তি মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরি

লজ্জার হারের প্রাপ্তি মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরি

বাংলাদেশ প্রতিবেদকঃ ৩৮২ রান তাড়া করে জেতার মতো দল বাংলাদেশ কখনই ছিল। না। এই বিশ্বকাপে আরও না। সেখানে ৮১ রানে ৬ উইকেট হারানোর পর বাংলাদেশ দলের সামনে আরকেটি শোচণীয় হারই অপেক্ষা করছিল। সেই হার হতে পারে দুই’শ রানের উপরে। কিন্তু তা আর হয়নি। হারের ব্যবধান কমে আসে ১৪৯ রানে। এতো কম হওয়ার কারণ মাহমুদউল্লাহ। তার একশ স্ট্রাইকরেটে করা ১১১ রানের ইনিংস। যেখানে চার ছিল ১১টি। সঙ্গে ছক্কা ৪টি। বাংলাদেশ অলআউট হওয়ার আগে ৪৬.৪ ওভার করে ২৩৩ রান। বাংলাদেশের হারে প্রাপ্তি ছিল মাহমুদউল্লাহর এই সেঞ্চুরিই। ৫ ম্যাচে বাংলাদেশের চতুর্থ হারের বিপরীতে দক্ষিণ আফ্রিকার সমান ম্যাচে চতুর্থ জয়। এই জয়ে প্রোটিয়ারা যেমন সেমির পথে অনেক দূর এগিয়ে গেল, সেখানে বাংলাদেশের সেই পথে নেমে আসল অন্ধকার।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়াম ছিল রান বন্যার। সেই উইকেট প্রোটিয়া ব্যাটাররা রানের ফুলঝুরি ছিটেয়েছেন ডি কক। চলতি বিশ্বকাপে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে ১৪০ বলে ১৭৪, হ্যানরিকস ক্লাসেন ৪৯ বলে ৯০, মার্করাম ৬৯ বলে ৬০ মিলার ১৫ বলে অপরাজিত ৩৪ রান করেন। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটাররা এসে যেন হাবুডুবু খেতে থাকেন। কিন্তু মাহমুদউল্লাহ এসে তা ভ্রান্ত করে দেন।

আগের ম্যাচগুলোতে নিচের দিকে ব্যাট করে ৪৬ ও অপরাজিত ৪১ রান করেছিলেন। এই ম্যাচে ছয়ে ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে নিজেকে নিয়ে যান অনেক উঁচুতে। প্রমাণ করেন নিজের সামর্থ। জবাব দিলেন বিশ্বকাপের আগে তাকে অযাচিতভাব কয়েকটি সিরিজ ও টুর্নামেন্টে বাদ দেওয়ার।

মাহমুদউল্লাহ যখন ক্রিজে আসেন, তখন দলের রান ৪ উইকেটে মাত্র ৪২, ওভার ১১.৫টি। দলের অবস্থা খুবই কাহিল। এ রকম পরিস্থিতি মাহমুদউল্লাহ ঠাণ্ডা মাথায় করে যান ব্যাটিং। একপ্রান্তে উইকেট পতন অব্যাহত থাকে। কিন্তু মাহমুদউল্লাহ ছিলেন অবিচল। প্রোটিয়াদের ভয়ংকর বোলিং মোকবেলা করে এগিয়ে যান। তাকে রেখে একে একে আউট হয়ে যান মুশফিক, লিটন, মিরাজ, নাসুম। কিন্তু তাকে ভালো সঙ্গ দেন মোস্তাফিজ। ১৫৯ রানে অষ্টম উইকেটর পতন হওয়ার পর মোস্তাফিজকে নিয়ে তিনি নবম উইকেটে ৯ উইকেট যোগ করেন ৬৭ রান। এ সময় তিনি তার সেঞ্চুরিও পূর্ণ করেন রাবাদার বলে ফাইন লেগে এক রান নিয়ে। বল খেলেন ১০৪টি। ৩টি ছক্কার সঙ্গে ছিল ১০টি চার। এই সেঞ্চুরি পূর্ণ করতে তিনি অনেক সিঙ্গেল রানও নেননি। বিশ্বকাপে এটি তার তৃতীয় সেঞ্চুরি। আগের দুইটি ছিল ২০১৫ সালে ব্যাক টু ব্যাক। ক্যারিয়ারের তার সেঞ্চুরি চারটি। অপরটিও ছিল আইসিসির ইভেন্টে। ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে। মাহমুদুউল্লাহর ইনিংসের ইতি ঘটে কোয়েটজের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে জানসেনের হাতে ধার পড়ে।

মাহমুদউল্লাহ পর দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান ছিল লিটন দাসের ২২। এ ছাড়া নাসুম ১৯, তানজিদ ১২ ও মোস্তাফিজ ১১ রান করেন। কোয়েটজি ৬২ রানে ৩ উইকটে। ২টি করে উইকেট নেন জানসেন, রাবাদ ও উইলিয়ামস। ১৭৪ রানের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা হন কুইন্টন ডি কক।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments