মো: রবিউল ইসলাম: তৃতীয় ধাপে লক্ষ্মীপুরের ৫টি উপজেলার মধ্যে চেয়ারম্যান পদে নৌকা ডুবে বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। অপর দিকে রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলায় বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামীলীগ প্রার্থীরা। রবিবার (২৪ মার্চ) ভোট গণনা শেষে রিটার্ণিং কর্মকর্তা বেসরকারি ভাবে এ ফলাফল ঘোষনা করেন। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হলেন যারা। যদিও এসব নির্বাচনে দিন ভোটার উপস্থিতি ছিল নগন্য। লক্ষ্মীপুর সদর : চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী (দোয়াত কলম প্রতীক) জেলা যুবলীগ সভাপতি এ কে এম সালাহ উদ্দিন টিপু ৫১ হাজার ২৯৯ ভোট পেয়ে পুনরায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্ধন্ধি নৌকা প্রতীকের আবুল কাশেম পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৯৪ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে অ্যাডভোকেট রহমত উল্লাহ বিপ্লব (বৈদ্যুতিক বাল্প প্রতীক) ২২ হাজার ৮২৮ ভোট ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাজী খালেদা আক্তার (হাঁস প্রতীক) ৩১ হাজার ৬০১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। অপর দিকে ভোটারদের উপস্থিতি কম কেন এমন প্রশ্নের জবাবে সদর উপজেলার তেওয়ারীগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাংবাদিকদের জানান, প্রার্থীদের ব্যর্থতার কারনে ভোটারদের উপস্থিতি কম হয়েছে। সুষ্ঠ নির্বাচন হলেও ভোটারদের বাড়ি বাড়িয়ে গিয়ে ভোট চাওয়া কিংবা ওয়ার্ড পর্যায়ে সমর্থক ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে কোন ধরনের সভা কিংবা বৈঠকের আয়োজন করা হয়নি। তবে একই উপজেলার ভবাণীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল হাসান রণি ভিন্ন যুক্তি উপস্থাপক করে সাংবাদিকদের বর্তমানে অনেক ভোটারের হাতে নির্বাচন কমিশনের স্মার্ট কার্ড রয়েছে। অথচ ভোটার তালিকায় এনআইডি নাম্বার থাকায় অনেক ভোটার ভোট দিতে এসে নাম ও ভোটার নম্বর না পাওয়ায় কেন্দ্র থেকে ফেরত গেছে। এ বিষয়ে কমিশনের ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত না হলে সামনের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে একই পরিস্থিতি স্বীকার হবে ভোটাররা। রামগঞ্জ: চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনির হোসেন চৌধুরী (নৌকা প্রতীক) ৮৭ হাজার ২৭০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। প্রতিদ্ধন্ধি প্রার্থী (আম

প্রতীক) নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৩৭০ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে দেওয়ান বাচ্ছু (চশমা প্রতীক) ৬৯ হাজার ৫৫২ভোট পেয়ে বিজয় হন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সুরাইয়া আক্তার বিনা প্রতিদ্ধন্ধিতায় নির্বাচিত হন। রায়পুর : চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মামুনুর রশীদ (নৌকা প্রতীক) ৩৭ হাজার ৪৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। প্রতিদ্ধন্ধি প্রার্থী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী (মটর সাইকেল প্রতীক) পেয়েছেন ২৬ হাজার ২২১ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে মারুফ বিন জাকারিয়া (টিউব ওয়েল প্রতীক) ২৭ হাজার ২২৭ ভোট পেয়ে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মাজেদা বেগম (প্রজাপতি প্রতীক) ২০ হাজার ৪৭৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। রামগতি: চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী শরাফ উদ্দিন আজাদ সোহেল (কাপ পিরিচ প্রতীক) ২০ হাজার ৭১৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। নিকটতম প্রতিদ্ধন্ধি আওয়ামীলীগের আব্দুল ওয়াহেদ (নৌকা প্রতীক) পেয়েছেন ১৫ হাজার ৯৪৬ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোহাম্মদ রাহীদ হোসেন (টিউবওয়েল প্রতীক) ১৮ হাজার ৫৩৭ ভোট পেয়ে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফাতেমা আক্তার জোসনা (কলস প্রতীক) ১৬ হাজার ৪৩৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। কমলনগর: চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মেজবাহ উদ্দিন বাপ্পি (দোয়াত কলম প্রতীক) ১৪ হাজার ৫৫৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তার নিকটতম প্রতিদ্ধন্ধি নুরুল আমিন মাষ্টার (নৌকা প্রতীক) পেয়েছেন ১২ হাজার ৩৪৬ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ওমর ফারুক সাগর (টিয়া পাখি প্রতীক) ১৩ হাজার ১৩০ ভোট পেয়ে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফুটবল প্রতীকের রোকসানা আক্তার রুক্স্রি ২৩ হাজার ৬৩২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম এসব ফলাফলের বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।