রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধিন আহত ইউপি সদস্য বাবুল ও ফজলুল করিম

তাবারাক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী পৃথক সহিংসতায় প্রতিপক্ষের হামলায় ইউপি সদস্যসহ ৭জন মারাত্মক আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে গুরুতর জখম ইউপি সদস্যসহ ৪জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাগুলো ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার বামনী ইউনিয়নের সিবপুর-কাঞ্চনপুর গ্রামের বক্সালী বাড়ীর সামনে, চরবংশী ইউনিয়নের মেঘনা নদীর সংলগ্ন গুদারাঘাট এলাকা, আখনবাজার ও বুধবার সকালে চরআবাবীল ইউনিয়নের উদমারা গ্রামের। বুধবার দুপুরে ক্ষতিগ্রস্থদের পক্ষ থেকে পৃথক থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এই ঘটনায় বুধবার দুপুরে নব-নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, আ’লীগ নেতৃবৃন্দু ও ওসি আহতদের প্রতি সহানুভূতি জানিয়ে উভয়পক্ষকে শান্ত থাকার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। আহত ব্যক্তিরা হলেন, বামনী ইউনিয়ন আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ৩নং ওয়ার্ডের ২বারের নির্বাচিত ইউপি সদস্য নাজির আহাম্মেদ বাবুল (৫৪), দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়ন আ’লীগের কর্মী ফজলুল করিম বহদ্দার (৩৫), লোকমান হোসেন সাগর (৩০), উত্তর চরবংশী ইউপির আ’লীগের কর্মী কাশেম আলী সরদার (২৭), দক্ষিণ চরআবাবীল ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সৌরভ হোসেন (২৫) সহ ৭ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ইউপি সদস্য, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা সহ আহত ব্যক্তিরা জানান, গত ২৪ মার্চ ৩য় ধাপে ৫ম রায়পুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন হয়। এতে সতন্ত্র প্রার্থী আ’লীগ নেতা মাস্টার আলতাফ হোসেন হাওলাদারকে (মটরসাইকেল) পরাজিত করে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন দলের মনোনিত প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ (নৌকা)। দলের বেশিরভাগ নেতা কর্মীরা নৌকার পক্ষে এবং এক ইউনিয়ন চেয়ারম্যানসহ কিছু সংক্ষক কর্মী মটরসাইকেল প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন দেয়। বামনী ইউনিয়নের সামছুন্নাহার উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের জন্য ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দিনকে এক লক্ষ টাকা দেন নৌকার প্রার্থী। কিন্তু সামছুদ্দিন ওই টাকা কর্মীদের না দিয়ে তিনি একাই আত্মসাৎ করার প্রতিবাদ করায় কেন্দ্রের আহবায়ক ও ইউপি সদস্য নাজির আহম্মদ বাবুলকে মঙ্গলবার রাত ১১টায় বাড়ীর সামনে লাঠি ও টর্চ লাইট দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক জখম করে। একই রাতে উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের মেঘনা নদীর সংলগ্ন গুদারাঘাট এলাকায় মটরসাইকেল প্রার্থীর পক্ষে কর্মী কাশেম আলী সরদার ভোট করায় নৌকার প্রার্থীর লোক ইব্রাহিম ও আলী হোসেনসহ ৪/৫জন দুবৃর্ত্ত পিটিয়ে আহত করে দেশিয় অস্ত্র শরীরের সাথে রেখে সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করে ছবি তোলে এবং মৃত ভেবে চলে যায়। ভোটের দিন পশ্চিম চরলক্ষী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মটরসাইকেল প্রার্থীর পক্ষে তার কর্মীদের জাল ভোট দেয়ার প্রতিবাদ ও বাধা দেয়ায় নৌকার প্রার্থীর কেন্দ্রের আহবায়ক দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়নের আখনবাজার এলাকা দিয়ে মঙ্গলবার রাত ১১টায় বাড়ী যাওয়ার পথে ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে ইউপি সদস্য আলমগীর হোসেন মোহাম্মদ আলী ও তার ভাই পুলিশের উপর হামলাকারী লিটনের নেতৃত্বে ৫ জন হামলা চালিয়ে মারাক্তক আহত করে। নির্বাচনের দিন নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করায় সেচ্ছাসেবকলীগের ১ নং ওয়ার্ড সভাপতি সৌরভ হোসেনকে বুধবার সকালে চরআবাবীল ইউনিয়নের উদমারা গ্রামে মটরসাইকেল প্রার্থীর লোক মো: নজির,হুমায়ুন,জাকির ও নয়ন পিটিয়ে মারাত্মক আহত করে। এব্যাপারে বামনী ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক সামছুদ্দিন ও দক্ষিণ চরবংশী ইউপি চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্টু ফরাজি বলেন, এঘটনা সম্পর্কে আমরা কিছুই জানিনা। নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা রোধে দুই প্রার্থীর লোকদের সর্তক করে দেয়া হয়েছে। তবে অভিযুক্ত ইব্রাহিম, আলী হোসেন, নজির, হুমায়ুন, জাকির, নয়ন, ইউপি সদস্য আলমগীর হোসেন মোহাম্মদ আলী, লিটন, আলামীন ও আব্দুল আলীর সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হয় এবং তারা পলাতক থাকায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। রায়পুর থানার ওসি একেএম আজিজুর রহমান মিয়া জানান, উপজেলা নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা রোধে দুই প্রার্থীর লোকদের শান্ত থাকার জন্য সর্তক করে দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ও বুধবার সকালে পৃথক স্থানে ঘটে যাওয়া হামলার ঘটনাগুলো তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।