কেশবপুরের জাহানপুর গ্রামে মৃত শহিদুল সরদারের এতিম পরিবার

জি এম মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে ভুমিদস্যুদের কবল থেকে ৪৫ বছরেও দখল মুক্ত হয়নি এতিমের সম্পত্তি। সরকার সম্পত্তি বুঝে দিলেও মৃত্যুভয়ে ঐ সম্পত্তির দখল নিতে সাহস পাচ্ছে না ঐ এতিম পরিবার।
মামলা ও সরেজমিন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার জাহানপুর গ্রামের মৃত শহিদুল ইসলাম সরদার ওয়ারেশ ও ক্রয় সূত্রে ০৭ নং জাহানপুর মৌজার ( ক) তফসিল বর্ণীত জমির এস এ ৩০৭,১০৬৫,১০৬৭ ও ১১০৫ খতিয়ানের ০৯টি হাল দাগ থেকে মোট ৮১ শতক,(খ) তফসিলে এস.এ ৯৩৬ খতিয়ানের ৪ টি হাল দাগ থেকে ২১ শতক, (গ) তফসিলে এস.এ ৯৬২ ও ১০৬৯ খতিয়ানে ০৩ টি হাল দাগে সাড়ে ২০ শতকসহ সর্বমোট ১ একর ২৪ শতক জমির মালিক হন শহিদুল ইসলাম। এর মধ্যে ১৩ শতক সম্পতি বর্তমানে শহিদুলের পরিবার পৈতৃক ভীটা হিসেবে দখলে রয়েছে। বাকী সম্পত্তি প্রায় ৪৫ বছর ধরে মোহর আলী সরদার ও বছির সরদারের ওয়ারেশগন জোর করে দখল করে সেখানে বসতবাড়ী তৈরি করে বহাল তবিয়াতে রয়েছে।
মৃত শহিদুল ইসলামের বড় ছেলে হাবিবুর রহমান জানান, দাদা জসিম সরদারের ওয়ারেশ ও ক্রয় সূত্রে তার পিতা (শহিদুল) ১ একর ২৪ শতক সম্পত্তির মালিক হন। এর মধ্যে ৪৫ শতক সম্পত্তি হাল রেকর্ডের সময় জসিম সরদারের কোন ওয়ারেশ না পাওয়ার কারনে সরকারী ১/১ খতিয়ানের “খ”গেজেট ভুক্ত হয়। তখন পিতার বয়স ছিল মাত্র ৫ বছর। বয়স কম থাকায় চাচাত দাদা মোহর আলী তার পিতার অভিভাবকের দায়িত্ব নিয়ে তার পিতাকে অন্যের বাড়ীতে কাজের জন্য রেখে আসেন। এই সুযোগে ১/১ খতিয়ানের ৪৫ শতক সম্পতি বাদে বাকী সম্পত্তি মোহর আলী নিজ নামে হাল রেকর্ড করে নেয়। যশোর দেওয়ানী আদালতে সম্পত্তির রেকর্ড সংশোধনের মামলা করে তার পিতা। যা চলমান রয়েছে। যার মামলা নং-৭১/২০০৮।
এদিকে ৮৩০ খতিয়ানের ২১৪১,২১৪৪,২৩৯৮,২৩৯৯ ও ২৪০১ দাগের ১/১ খতিয়ানে ৪৫ শতক জমি যাহা ১/১ খতিয়ানের অন্তর্ভুক্ত ছিলো সেই সম্পত্তি ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ভিপি অবমুক্ত মিস কেস নং-৫১/১৪-২৫ এর মাধ্যমে তার পিতা শহিদুলের নামে সরকার ফেরত দেয়। যে সম্পত্তি চুড়ান্তভাবে হাল ৮৩০ খতিয়ানে প্রকাশিত হয়। উক্ত ৪৫ শতকসহ বাকী সম্পত্তির দখল নিতে গেলে অবৈধ দখলদার মোহর আলী সরদারের ছেলে মজিবার,ওজিয়ার,আজিজুর,মিজানুর,বছির উদ্দীন সরদারের ছেলে লিয়াকত,আব্দুর রাজ্জাক,লুৎফার রহমান ও কামরুল ইসলাম মিলে তার পিতাকে বেদম পারপিট করে। যে কারনে তার পিতার স্মৃতিশক্তি লোপ পায়। এক পর্যায়ে তার পিতা ২০১৫ সালের ২২ জুন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। সে আরো জানান, উক্ত জমির দখল নিতে গেলে তারা তার স্ব পরিবারকে হত্যা করার হুমকী দিচ্ছে। তিনি প্রভাবশালী ভুমিদস্যুদের কবল থেকে পৈতৃক সম্পত্তি পুনঃউদ্ধারে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। মৃত শহিদুলের স্ত্রী ফতেমা বেগম বলেন, ওদের ভয়ে আমি আমার দুই এতিম সন্তান নিয়ে প্রতিটি সময়, প্রতিটি মূহুর্ত চরম আতংকের মধ্যে অতিবাহিত করছি। উক্ত সম্পত্তির জন্য আমার স্বামীতে মরতে হয়েছে। আমার দুই এতিম সন্তান ভ্যান চালিয়ে অতি কষ্টে সংসার চালাচ্ছে। ওরা আমার সন্তানদেরকে প্রকাশ্যে হুমকী দিচ্ছে,যদি উক্ত সম্পত্তির দিকে হাত বাড়াস তাহলে তোদেরও তোর বাপের মত অবস্থা করা হবে।
শহিদুলের সম্পত্তি জবর দখলের ব্যাপারে জানতে চাইলে মোহর দরদারের ছেলে মজিবার সাংবাদিকদের জানান, এসিল্যান্ডের সাথে গোপন আতাতের মাধ্যমে ঐ ৪৫ শতক জমি একতরফা ভাবে শহিদুল নিজ নামে করে নিয়েছে। আমরা ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছি। এছাড়া বাকী সম্পত্তি নিয়ে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। আমরা বাপ-দাদার আমল থেকেই এই সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছি বলে তিনি জানান।