হুমায়ুন কবির: সম্প্রতি পাহাড়ী ঢলের পানির চাপে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দায় বাঁশের একটি সাঁকো ভেঙে পড়ে। ফলে স্থানীয় লোকজন, শিক্ষার্থী, শিশু বৃদ্ধসহ রোগীরা সীমাহীন দুভোর্গের শিকার হচ্ছেন। তাছাড়া ওই নদীতে চলাচলকারী বিভিন্ন নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

বোধবার (২২মে) স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রায় এক যুগ ধরে এলাকাবাসীর চাঁদায় ভোগাই নদীর ওপর উপজেলার কৈলাটি ইউনিয়নের দক্ষিণ রানীগাঁও গ্রামে একটি বাঁশের সাঁকো নিমার্ন করা হয়েছিল। আর ওই সাঁকো দিয়ে দক্ষিণ রানীগাঁও, হাটখলা, চামারজানি, খলা, গোপীপাড়া, গনিয়ারগাও, সাকুয়া, বামনগাও, টেংগা, বটতলাসহ ১০-১২টি গ্রামের লোকজন চলাচল করে আসছিল।

সম্প্রতি পাহাড়ী ঢলের পানির চাপে সাঁকোটি ভেঙে পড়ায় দুভোর্গে পড়েছে ওই এলাকার লোকজন।
স্থানীয় কৃষক হাজী আব্দুল মোতালিব জানান, তাদের উৎপাদিত কৃষিপন্য ওই সাঁকোর উপর দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিবহন করত।

কিন্তু ওই এলাকার চলাচলের একমাত্র ভরসা সাঁকোটিও ভেঙে পড়ায় আমরা আমাদের উৎপাদিত ফসল নিয়ে চলাচল করতে পারছিনা। তাছাড়া সাঁকোটি ভেঙে নদীতে পড়ে থাকায় ওই নদীতে নৌযান চলাচলও বন্ধ রয়েছে।

দক্ষিণ রানীগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক প্রবীর ধর বলেন, প্রতিদিন বিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী ওই সাঁকো দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে যাওয়া-আসা করে।

এখানে একটি স্থায়ী সেতু নির্মাণ করা হলে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ এলাকার ১০-১২টি গ্রামের লোকজনের ভোগান্তির অবসান হবে।
৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম বলেন, বাঁশের সাঁকোর স্থলে এখানে একটি সেতু নির্মাণ করা হলে শিক্ষার্থীদের স্কুল-কলেজে যাতায়াত ও স্থানীয় কৃষকদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য পরিবহণসহ চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তি সহজতর হবে।