কেন্দুয়ায় গার্মেন্টস কর্মীকে গণধর্ষন, আটক ৩

হুমায়ুন কবির: নেত্রকোণার কেন্দুয়া গার্মেন্টস কর্মী গণধর্ষনের ঘটনায় ৩ ধর্ষককে আটক করতে সক্ষম হয়েছে কেন্দুয়া থানা পুলিশ। শনিবার (৮জুন) বিকাল ৩ টায় কেন্দুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রাশেদুজ্জামান তার কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যেমে ধর্ষক টিপু, আনোয়ার ও আমির হামজা গার্মেন্টস কর্মী ওই নারীকে ধর্ষনের কথা স্বীকার করেছে বলে জানান। প্রেস ব্রিফিং এ ওসি বলেন, কেন্দুয়া মাস্কা গ্রামের গার্মেন্টস কর্মী ওই নারীকে তার কথিত স্বামী সুমন পরিচয়দানকারী বৃহস্পতিবার বেড়ানোর কথা বলে গোগ বাজার এলাকার শাপলা ইট ভাটার কাছে নিয়ে যায়। সেখানেই গণধর্ষনের শিকার হয় ওই নারী। সুমনের প্রকৃত নাম নূরে আলম। সে উপজেলার কান্দিউড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের আব্দুল হামিদ ওরফে শম্ভু মিয়ার পুত্র। তাকে এখনও আটক করা যায়নি। গ্রেফতারকৃত ৩ ধর্ষক হল-বৈরাটী গ্রামের রঙ্গু মিয়ার পুত্র ইট ভাটা শ্রমিক টিপু, একই গ্রামের সবুজ মিয়ার পুত্র আনোয়ার এবং আব্দুল কাদিরের পুত্র আমির হামজা। তাদেরকে শুক্র ও শনিবার অভিযান চালিয়ে মদন, গৌরীপুর ও ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তারা ধর্ষনের কথা স্বীকার করেছে এবং টিপুকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীর জন্য নেত্রকোণা আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ভিকটিম গার্মেন্টস কর্মী ওই নারী অজ্ঞাত ৩জনকে আসামী করে ৭জুন কেন্দুয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ওসি আরোও জানান, কথিত স্বামী নূরে আলমকে আটক করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।