সরকারের সদয় দৃষ্টি বাচাঁতে পারে মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল হকের প্রাণ

অস্ত্র জমাদেয়ার কাগজ আছে কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট নেই।এটাই বাস্তবতা!! পর্ব-২

বর্তমান সময়ে দেশের তথা পটুয়াখালী জেলায় এমন কিছু মানুষ আছেন যাদের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ের কোন দলীল নেই সুধু মাত্র টাকা আর ক্ষমতার জোরে হাতিয়ে নিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের পরিচিত পত্র।আর সত্যি কারের যোদ্ধাদের নাম থেকে যায় তদবির ও তদারকির ফাইলের নিচে কেউবা আবার সময়ের ব্যবধনে নিজেকে আরাল করেনিছেন অপেক্ষার সময় কে হাত নারা দিয়ে মুখথুবড়ে পরে আছেন এই সমাজে।তাদেরই মতন একজন পটুয়াখালী জেলার মরিচবুনিয়া ইউনিয়ানের পাটুখালী গ্রামের মৃত তাজেম আলীর সন্তান মোঃ নুরুল হক কাজী(৬৬)। তার সাথে কথা বলে জানা যায় তিনি ১৯৭১  সনে মহান মুক্তিযুদ্ধ পটুয়াখালী জেলায় পানপর্টি এলাকায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন এ সময় পাকবাহিনীর দেয়া আঘাত দেখান প্রতিবেদককে বলেন তখন কার সময়ের নানান ঘটনার কথা।জানতে চাওয়া হয় তার সহযোদ্ধাদের কথা, তিনি বলেন পটুয়াখালীর ইঁট বাড়িয়ার আইয়ুব মাতবার, মরিচবুনিয়ার ইউনিয়নের  আজাহার মৃধা , জেলা সদরের মোঃ হালিম এর কথা উলেক্ষ করেন।বর্তমানে এই যোদ্ধা চর্মরোগে দীর্ঘ দিন অসুস্থ্য আছেন উন্নত চিকিৎসার অভাবে একটু একটু করে মৃত্যুর দিকে দাবিত হচ্ছে তার সুচিকিৎসার দরকার। তাই তার পরিবারের আকুল আবেদন তাকে যেনো সঠিক ভাবে মূল্যায়ন করে প্রকৃতি মুক্তিযুদ্ধাদের প্রাপ্ত সম্মান দেয়া হয়।স্থানীয় জন প্রতিনিধি, সাধারণ জনগণ এই যোদ্বার জন্যে আকুল আবেদন পটুয়াখালী স্থানীয় সরকার প্রধান মাননীয় জেলা প্রশাসক ও সংসদ সদস্য,স্বাধীনতা সপক্ষের সরকারের স্থানীয় দলীয় নেতাদের প্রতি আকুল আবেদন যাতে করে এই যোদ্বার বর্তমান দুরারোগ্য চর্ম রোগের জন্য উন্নত চিকিৎসার ব্যাবস্থা গ্রহন করে তাকে তার প্রাপ্ত সম্মান দেন।