শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলাবন্যায় ভূঞাপুরে প্রায় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া বিঘ্নিত

বন্যায় ভূঞাপুরে প্রায় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া বিঘ্নিত

আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে প্রায় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি প্রবেশ করায় সেগুলো বন্ধ ঘোষণা করেছে উপজেলা শিক্ষা অফিস। গত কয়েক সপ্তাহ যাবৎ বন্যায় এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। সরেজমিন দেখা গেছে, বেশিরভাগ বিদ্যালয়গুলো বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। আবার অনেক বিদ্যালয়ের শ্রেণি ও অফিস কক্ষে কোমর পর্যন্ত পানি উঠেছে। পানি প্রবেশ করায় অনেক বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকায় আসন্ন পিইসি, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার্থীদের লেখাপড়া বিঘ্নিত হচ্ছে। এদিকে বন্যায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হওয়ায় ৮টি প্রাথমিক ও ৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে খোলা হয়েছে আশ্রয় কেন্দ্র। উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, ৫২ টি প্রাথমিক, ১৪ টি মাধ্যমিক, ৬ টি দাখিল মাদরাসা, ১৫ টি কিন্ডার গার্টেন, ১৫ টি ইবতেদায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষনা করেছে কর্তৃপক্ষ। খানুরবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমান বলেন, বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করায় বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বন্যার পানির কারণে বিদ্যালয়ের আসবাব পত্র নষ্ট হয়ে গেছে। কবে নাগাদ বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম চালু করতে পারব তা বলা মুশকিল। গোবিন্দাসী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খন্দকার মোহাম্মদ আলী বলেন, হঠাৎ করেই বিদ্যালয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করায় অফিস ও নীচতলার প্রতিটি শ্রেণি কক্ষে হাঁটুপানি থাকায় ক্লাস কার্যক্রম অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে এতে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া বিঘিœত হচ্ছে। তিনি আরো জানান, গত ২০১৭ সালেও আমার বিদ্যালয়ে প্রায় কোমর পর্যন্ত পানি উঠে ছিল। তখনও বিদ্যালয়ে বেশ ক্ষতি হয়ে ছিল।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শাহনেওয়াজ পারভীন বলেন, বন্যার কারণে ভূঞপুরের ৫২ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। ১০ টি বিদ্যালয়ে আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহীনুর ইসলাম বলেন, বন্যার পানি প্রবেশ করায় উপজেলার ১৪ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৬ টি দাখিল মাদ্ধসঢ়;রাসা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বন্যা কবলিত অনেক পরিবার সেখানে আশ্রয় নিয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঝোটন চন্দ জানান, বন্যার কারণে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি প্রবেশ করায় সেগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়া কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যা কবলিত এলাকার মানুষদের জন্য আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments