কেন্দুয়া উপজেলা আ'লীগের সভাপতি প্রার্থী হচ্ছেন সালমা আক্তার

হুমায়ুন কবির: নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলা আ’লীগের সম্মেলনের দিন ক্ষণ ঠিক না হলেও সভাপতি প্রার্থী হিসেবে আগ্রহ প্রকাশ করে মাঠে কাজ শুরু করেছেন নারী নেত্রী সালমা আক্তার

তিনি বর্তমান নেত্রকোনা জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-২,এবং উপজেলা চিরাং ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক দুই বারের সফল চেয়ারম্যান।

এছাড়াও তিনি সাহসী নারী নেত্রী হিসেবে সমাজের বিভিন্ন উন্নয়নের জন্য অবদান রাখাসহ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে বৃক্ষরুপনে স্বর্ণপদক প্রাপ্ত
এবং ময়মনসিংহ বিভাগীয় পর্যায়ে জয়িতা পুরস্কারপ্রাপ্ত।

তিনি সাবেক কেন্দুয়া উপজেলা আ’লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব ও পালন করেছের।

এছাড়াও তার নিজ উপজেলায় রয়েছে তার জনমত তিনি নেত্রকোনা- ৩ আসনের সংসদ সদস্য অসীম কুমার উকিল এবং বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের সাধারন সম্পাদক অপু উকিল এর আস্থাভাজন হিসেবেও তিনি দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে সুস্পর্ক স্থাপন করে চলেছেন।

এবং তিনি গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজেকে নেত্র কোনা -৩ আসনে আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবেও কেন্দুয়া আটপাড়া হাটে মাঠে কাজ করেছেন।

পরে তিনি যখন জানতে পারলেন আ’লীগের দলীয় সভানেত্রী প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আ’লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল কে দলীয় প্রতিক নৌকা দিয়েছেন সে খবর জানা মাত্রই তিনি কেন্দুয়া আটপাড়া সাধারন ভোটার সহ নেতা কর্মীদের সাথে যোগাযোগ করে অসীম কুমার উকিল এর নৌকা কে বিজয়ী করতে কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়লেন এবং তিনি সফল হয়েছেন।

নারী নেত্রী সালমা আক্তারের সাথে মোবাইল ফোনে সোমবার( ২ সেপ্টেম্বর) রাতে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন নিজেকে কেন্দুয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি প্রার্থী হিসেবে aগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

দলীয় সুত্র জানায় এই কেন্দুয়া উপজেলায় ২০০৩ সালের জুলাইয়ে আ’লীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর ১৬ বছর অতিবাহিত হলেও আর সম্মেলন হয়নি
বর্তমান এই আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এম.পি হওয়া তিনি খুব অল্প সময়ে মধ্যে কেন্দুয়া উপজেলা অা’লীগের সম্মেলন সম্পন্ন করার বিষয়ে তিনি খুবই তৎপর রয়েছেন।

উল্ল্যেখ কেন্দুয়া উপজেলায় ১৩টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত।

এর মধ্যে একটি ইউনিয়নের সম্মেলন হয়নি এবং বাকী ইউনিয়নে চলছে পূর্নাঙ্গ কমিটির গঠন প্রক্রিয়া।
দলীয় সুত্রমতে বাকী একটি ইউনিয়নের সম্মেলন সম্পন্ন হলেই উপজেলা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা হবে।