কলাপাড়ায় ক্ষমতাসীন দলের ক্লাব ঘর ও অফিস নির্মানের নামে জেলেদের কাছ থেকে কোটি টাকার চাঁদাবাজি

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ার কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে ইলিশ শিকারিদের কাজ থেকে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা ক্লাব ঘর ও অফিস নির্মানের নামে কয়েক কোটি টাকার চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। আড়ৎদার ও মহাজনদের কাছ থেকে দাদন নিয়ে দরিদ্র জেলেরা মাছ শিকারের সরঞ্জামাদি সহ তেল ও বরফ নিয়ে মাছ শিকারে সমুদ্রে যাওয়ার সময় অভিনব ভাবে চাঁদাবাজির কবলে পড়ায় এখন তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এমনকি যে জেলেরা টাকা দিতে পারেনি তাদের সমুদ্রে যেতে বাঁধা প্রদান সহ মারধর করে টাকা আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। একাধিক ভুক্তভোগী জেলে জানায়,পায়রা সমুদ্র বন্দর সংলগ্ন রামনাবাদ চ্যানেল’র আতাখালী খাল গোড়া থেকে বঙ্গোপসাগরের হাইরের চর দক্ষিন পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি প্রায় ২০/৩০ কি.মি. এলাকায় ইঞ্জিন চালিত কয়েকশ’ ছোট মাছ ধরা নৌকা ও ট্রলার নিয়ে সহা¯্রাধিক জেলে আড়ৎদার মহাজনের কাছ থেকে আগাম দাদন নিয়ে কয়েক যুগ ধরে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। কিন্তু এবছর ইলিশ মৌসুমের শুরুতেই ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের চাঁদাবাজির কবলে পড়ে তারা। ক্ষমতাসীন দলের পরিচয় দিয়ে চলা ওই সকল নেতা-কর্মীদের এবছর সাফ কথা সমুদ্রে মাছ ধরতে হলে টাকা লাগে। টাকা না দিয়ে এবছর থেকে আর মাছ ধরার সুযোগ নাই। অস্ত্র উঁচিয়ে জেলেদের কাছ থেকে ক্লাব ঘর ও অফিস নির্মানের নামে আদায় করা হয় কয়েক কোটি টাকা। জেলেরা ক্যাডারদের চাঁদার টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ সহ অনুনয় বিনয় করেও কোন লাভ হয়নি। মারধর ও হামলার শিকার হতে হয়েছে ওই সব ক্যাডারদের হাতে। এমনকি কোন কোন জেলেকে চাপলি বাজারের টর্চার সেলে নিয়ে সদ্য র‌্যাবের হাতে অস্ত্র সহ আটক হওয়া মহিপুর থানা শ্রমিকলীগ সম্পাদক শাকিল মৃধা ও তার সহযোগীরা বেধড়ক মারধর করে বলেও জানিয়েছেন ভুক্তভোগী জেলেরা। ক্ষমতাসীনদলের ওই সব ক্যাডাররা জেলেদের কাছ থেকে ইঞ্জিন নৌকা ও ট্রলার প্রতি ৫০ হাজার থেকে সাড়ে তিন লক্ষ টাকা পর্যন্ত আদায় করে। এক প্রভাবশালী নেতা ও তার ক্যাডারদের নির্দেশ জেলেদের কাছ থেকে এ চাঁদার টাকা আদায় করে। কুয়াকাটা উপকূলের জলিল মাঝি, আনোয়ার আলী মেম্বর, ইউনুস দালাল ও মিজান হাওলাদার ওরফে মিজু। সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা ক্যাডারদের এ বেপরোয়া চাঁদাবাজির শিকার হলেও মারধর, বাড়ী-ঘরে হামলা ও ইয়াবা-গাঁজা পকেটে দিয়ে মামলা দিয়ে হয়রানীর হুমকীর ভয়ে কেউ মুখ খুলতে রাজী হয়নি।

এনিয়ে কুয়াকাটা-আলীপুর মৎস্য আড়তদার সমবায় সমিতি ও জেলে সমিতির নেতৃবৃন্দ প্রতিবাদ করলে জেলেদের কাছ থেকে জোরপূর্বক টাকা আদায়কারীরা নতুন মৎস্য আড়ৎ সমিতি ও জেলে সমিতি গঠনের কথা বলেছেন বলে জানিয়েছেন কুয়াকাটা-আলীপুর মৎস্য আড়ৎ সমবায় সমিতির এক শীর্ষ নেতা। সরেজমিন অনুসন্ধান ও একাধিক সূত্রে জানা যায়,উপকূলের যে সকল মাছ ধরা ট্রলার ও ইঞ্জিন নৌকার জেলেরা এ চাঁদাবাজির কবলে পড়েছে তাদের মধ্যে বাবলাতলা, ধূলাসার, কাউয়ার চর, চাপলি, নূতনপাড়া, নীলগঞ্জ, গঙ্গামতি সহ কুয়াকাটা উপকূলের বাইরের জেলেরাও রয়েছে। তন্মধ্যে সিদ্দিক মল্লিকের কাছ থেকে ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, আদু গাজীর কাছ থেকে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, শাহাছাব’র কাছ থেকে ২ লক্ষ টাকা, দেলোয়ার মোল্লা’র কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা, আলী মাঝি’র কাছ থেকে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, কামাল পল্যান’র কাছ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, মঞ্জু’র কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা, ইউসুফ মুন্সী’র কাছ থেকে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, জাহাঙ্গীর মাঝি’র কাছ থেকে ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা, নীলগঞ্জের আলমগীর মাঝি’র কাছ থেকে ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, পটুয়াখালী’র আলমগীর মাঝি’র কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা, ছোট নৌকার আব্বাস বিশ্বাস’র কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা, কাঞ্চন গাজী’র ট্রলার থেকে ২ লক্ষ টাকা জোর পূর্বক আদায় করে ক্যাডররা। কুয়াকাটা আশার আলো জেলে সমবায় সমিতি’র সভাপতি নিজাম শেখ জানান,বঙ্গোপসাগরের হাইরের চর এলাকায় জেলেদের টাকা ’খেও’ (জায়গা) কিনে দিয়ে মাছ ধরতে হয়। এছাড়া কুয়াকাটার কালা রহিম আশার আলো সমিতির রাজা মাঝি, মনোয়ার মাঝি ও ইমরানের কাছ থেকে টাকা নিয়ে হাইরের চরে মাছ ধরার ’খেও’ (জায়গা) বুঝ দেয়নি। এমনকি টাকাও ফেরত দেয়নি।’ কুয়াকাটা-আলীপুর মৎস্য আড়তদার সমবায় সমিতির সভাপতি মো: আনছার উদ্দীন মোল্লা জানান,সমুদ্রে মাছ ধরা জেলেদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের বিষয়ে আমরা সমিতির পক্ষ থেকে প্রতিবাদ করেও কোন লাভ হয়নি। ধূলাসার মৎস্য আড়ৎ সমবায় সমিতি ও জেলে সমিতি গঠনের জন্য টাকা আদায় করার কথা বলেছে আদায়কারীরা। মহিপুর থানার ওসি সোহেল আহম্মেদ বলেন,সমুদ্রে মাছ শিকারে নিয়োজিত জেলেদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে এরকম কোন ঘটনা আমার যানা নেই।