এনায়েতপুরে অবশেষে লতিফ বিশ্বাসের উদ্যোগে বেতিল-চাঁদপুরের রক্তক্ষয়ী বিরোধের সমাধান

মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার সদিয়াচাঁদপুর ইউনিয়নের যমুনার মাঝ খানের চর চাঁদপুর সহ আরো কয়েকটি গ্রাম। নদীর পশ্চিম পাড়ে অবস্থিত বেতিল-খামারগ্রাম। এদের মধ্যে শত-শত বছরের হৃদ্রতার সম্পর্ক। তবে হঠাৎ করেই গত মাসখানেক আগে বেতিল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ফুটবল ফাইনাল খেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অতীতের সে সম্পর্ক বিষাদে পরিনত হয়। উভয় গ্রামের মানুষ দফায়-দফায় জড়িয়ে পড়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে। আহত হয় অনেকে। ভাংচুর করা হয় ঘর-বাড়ি ও বাজারের বেশ কিছু দোকান পাঠ। দায়ের করা উভয় পক্ষের মামলায় আসামী করা হয় হাজারো মানুষকে। গ্রেফতারে পুলিশী অভিযানে অনেকেই ছিল ঘরছাড়া। টানা এক সপ্তাহ ছিল পুরো সদিয়াচাঁদপুর ইউনিয়ন জুড়ে এক ভীতিকর অবস্থা। বাজারের দোকান-পাঠও ছিল বন্ধ। এ বিষয়টি ছিল পুরো এনায়েতপুর, বেলকুচি এবং চৌহালী থানা জুড়ে টক অব দ্যা টাউন। এদের এই রক্তক্ষয়ী বিরোধ মেটাতে কেউ উদ্যোগী হবার সাহস পায়নি। অবশেষে সাবেক মন্ত্রী লতিফ বিশ্বাসের উদ্যোগে ব্যতিক্রমী সালিশী বৈঠকে শান্তিপুর্ন সমাধান হয়েছে। কয়েক হাজার মানুষের উপস্থিতিতে গ্রাম্য এ সালিশে দেশে প্রথম বারের মত ব্যবহার করা হয় মাইক। সাবেক মন্ত্রীর উদ্যোগে এ সালিশ মিমাংসায় সহযোগীতা করেন উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, বর্তমান-সাবেক অন্তত ১০ জন ইউপি চেয়ারম্যান সহ অন্তত ৩০ গ্রামের মাতব্বর। এনায়েতপুর থানার ওসি মাহবুবুল আলম ও স্থানীয়রা জানান, আধিপত্ত বিস্তার কে কেন্দ্র করে বেতিল ও চাঁদপুর এলাকার দ্বন্ধ নিরসনে গত ১৯ সেপ্টেম্বর সদিয়াচাঁদপুর ইউনিয়ন পরিষদে উভয় পক্ষের লোকজন নিয়ে শালিস বৈঠক হয়। সেখানে চাঁদপুর চরের পক্ষে ব্যাপক লোকজনের সমাগম হলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ঘন্টা ব্যাপী হামলা-পাল্টা হামলা সহ দফায়-দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে বেতিলের পক্ষের ১০টি দোকান, ঘরবাড়ি ভাংচুর সহ উভয় পক্ষের ২০ জন আহত হয়। এরপর আরো কয়েক দফায় সংঘর্ষের সুত্রপাত হলে পুলিশ ব্যবস্থা নেয়। টানা ৯ দিন মোতায়েন রাখা হয় পুলিশ। বন্ধ থাকে বেতিল বাজার। বিষয়টি নিরসনের লক্ষে এলাকার সর্বজন শ্রোদ্ধেয় সাবেক মন্ত্রী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাস উদ্যোগ নিয়ে উভয় পক্ষকে শনিবার সকালে বেতিল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সালিশ বৈঠকে সমবেত হতে বলেন। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৩ হাজার মানুষ উপস্থিতি হবার পাশাপাশি কিছু সময়ের জন্য স্থানীয় এমপি আব্দুল মমিন মন্ডল। এছাড়া আশপাশের ৩ থানার উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যান মেম্বর সহ গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত হন। উভয় পক্ষের কথা জানতে সবাই না শুনতে পারবে বিধায় দেশে প্রথম বারের মত সালিশ বৈঠকে ব্যবহার করা হয় মাইক। এ যেন এক বিশাল সমাবেশ। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদুল ইসলাম সিরাজের সভাপতিত্বে এ সালিশ শুরু হতেই সমঝোথার উদ্যোক্তা লতিফ বিশ্বাস উভয় পক্ষকে নমনীয় হয়ে সকলকে সম্মান দিয়ে একে অপরের অভিযোগের কথা উল্লেখ করতে বলেন। এরপর শুরু হয় সালিশ তখন বেতিলের পক্ষে মনিরুজ্জামান মনি, হারেজ আলী, মহিড় উদ্দিন, শাহা বুদ্দিন, আব্দুর রাজ্জাক, হাফিজুর রহমান এবং চাঁদপুরের পক্ষে শেখ হাফিজ, রমজান আলী, রুহুল হোসেন তাদের নিজ নিজ পক্ষে ঘটনা উপস্থাপন করেন। এরপর উভয় পক্ষের ঘটনা শুনে ১৫ সদস্যের জুড়ি বোর্ডকে পাঠানো হয় ক্ষতিপুরুন জরিপ করতে। তারা এসে সিদ্ধান্তের কথা জানালে সালিশের উদ্যোক্তা লতিফ বিশ্বাস বেতিল গ্রামের পক্ষকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা চাঁদপুরকে দিতে এবং চাঁদপুর পক্ষকে ৩ লাখ

টাকা জরিমানা করা হয় বেতিল পক্ষকে দিতে। এরপর উভয় পক্ষকে বুক মিলিয়ে কোলাকুলি করিয়ে দেয়া হয়। তখন পুরো মাঠ জুড়ে করতালীতে মুখোরিত হয় পুরো এলাকা। এ বিষয়ে সাবেক মন্ত্রী লতিফ বিশ্বাস বলেন, আমাদের এলাকা শান্তি প্রিয়। হঠাৎ করেই দ্বন্ধ হওয়ায় ঐ দু পক্ষের চেয়ে ব্যাথিত ছিলাম আমিই বেশি এ কারনে সকল কাজ ফেলে দুই এলাকায় অন্তত ১৫ হাজার মানুষকে আবারে ভালবাসার বন্ধনে আবদ্ধ করে দিয়েছি। শান্তিপুর্ন নিরসনে স্বস্থ্যি প্রকাশ করেছে উভয় পক্ষ। এ ব্যাপারে বেতিল পক্ষের মনিরুজ্জামান মনি, আতাউর রহমান আতা, হারেজ আলী মেম্বর এবং চাঁদপুর পক্ষের শেখ হাফিজ, রুহুল আমীন ও রমজান আলী জানান, আমরা চিন্তা করিনি যে এতো বড় দ্বন্ধ সহসাই নিরসন হবে। লতিফ বিশ্বাস যদি উদ্যোগ না নিত তাহলে সহজে আমরা উভয় পক্ষ এক হতে পারতাম না। তাই তার প্রতি কৃতজ্ঞতা। এদিকে সালিশে উপস্থিত চৌহালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক সরকার, ইউপি চেয়ারম্যান মুল্লুক চাঁদ মিয়া, হাজী সুলতান মাহমুদ এবং বেতিল উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ আখতারুজ্জামান বাবু জানান, এই সালিশ বৈঠক আমাদের জেলায় ইতিহাস হয়ে থাকবে। কারন এতো মানুষ গ্রাম্য সালিশে উপস্থিত হবার যেমন নজির নেই। তেমনি কোন সালিশে মাইক ব্যবহারও হয়নি। আর এরকম শান্তি প্রিয় সমাধান কেবল মানবতাবাদী লতিফ বিশ্বাসই পারেন তারই আরেক নজির হলো আরেক বার।