স্ত্রীকে তালাক দিয়ে বন্ধুর বউ নিয়ে উধাও! প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

কামাল সিদ্দিকী: ১৮ বছরের সংসারে তিন ছেলে সন্তানের জনক হওয়ার পর পরকিয়ায় আসক্ত হয়ে স্ত্রীকে তালাক দিয়ে বন্ধুর স্ত্রী ২ সন্তানের জননীকে নিয়ে উধাও হয়েছেন কুষ্টিয়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের শিক্ষক ফারুকুজ্জামান মালিথা। ইতোমধ্যে পুলিশের হাতে ওই ২ সন্তানের জননী প্রেমিকা আটক হলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন প্রেমিক। রোববার দুপুরে ফারুকুজ্জামানের তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী মনোয়ারা সুলতানা মনিরা পাবনা প্রেসক্লাবের ভিআইপি অডিটোরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। লিখিত বক্তব্যে মনোয়ারা সুলতানা মনিরা বলেন, ২০০১ সালে পাবনা সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়নের চরকোশাখালী গ্রামে আব্দুল রাজ্জাকের ছেলে ফারুকুজ্জামান মালিথার সাথে তার বিয়ে হয়। বৈবাহিক জীবনে তার তিনটি ছেলে সন্তান রয়েছে। যৌতুকের দাবীতে বিভিন্ন সময়ে স্বামী তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত। মনিরা জানান, তার স্বামী গত ৫ বছর আগে তার স্কুল শিক্ষক বন্ধু ফরিদের স্ত্রী দুই ছেলে সন্তানের জননী নার্গিস পারভীনের সাথে বাসায় যাতায়াত সুবাদে অনৈতিক ও পরকিয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। নানা ভাবে এই পথ থেকে ফিরে আসার জন্য স্বামীকে অনুরোধ করলেও তিনি সে অনুরোধ উপেক্ষা করে উল্টো তাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে ঘটনার কিছুদিনের মধ্যে গোপনে তাকে তালাকও দেন। ২৬ সেপ্টেম্বর বন্ধু ফরিদের স্ত্রী নার্গিস পারভীনকে নিয়ে ফারুকুজ্জামান পালিয়ে গেছেন। নার্গিস পারভীনের বোন শিখা ও ভাই মাসুম জানান, সহজ সরল ভগ্নিপতি ফরিদকে বোকা বানিয়ে গোপনে তালাক দিয়ে তার সাথে সংসার করছিলেন তার বোন। সুকৌশলে আমার বোনকে ফুসলিয়ে ও বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ঘর থেকে বের করে নিয়ে যান ভগ্নিপতি ফরিদের বন্ধু ফারুকুজ্জামান। তারা বলেন, শাহজাদপুর থানা পুলিশ তার বোন নার্গিসকে আটক করেছে। এখনও পলাতক রয়েছেন ফারুকুজ্জামান। মনোয়ারা সুলতানা মনিরার ভাই নাছির উদ্দিন বলেন, আমরা দুটি সংসার যাতে ধবংশ না হয়, আমার বোন মনিরার ৩ ছেলে এবং ফরিদের ২ সন্তানের ভবিষৎ জীবন চিন্তা করে প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু আইনী সমাধান প্রত্যাশা করছি।

সাংবাদিক সম্মেলনে ফারুকুজ্জামানের তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী মনোয়ারা সুলতানা মনিরা, তার ভাস্তি শিউলী খাতুন, ফারুকের স্ত্রী নার্গিসের বোন শিখা খাতুন ও ছোট ভাই মাসুম বিল্লাহসহ এলাকার মানুষজন উপস্থিত ছিলেন।