নারায়ণগঞ্জে ৫০ কোটি টাকার নকল পণ্যসহ আটক ৮

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে একটি কারখানায় অভিযান চালিয়ে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোড়কে তৈরি ৫০ কোটি টাকার নকল ইলেকট্রনিক ও প্রসাধনী সামগ্রী জব্দ করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় কারখানাটিতে কর্মরত ৮ কর্মচারিকে আটক করা হয়। পরে কারখানাটি সিলগালা করে দেয়া হয়।

বুধবার রাতে জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার শিমরাইল এলাকায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ এ অভিযান চালায়। আটক ব্যক্তিরা হলেন, সাইফুল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম, অহিদুল ইসলাম, রাজীব, মাইনুল ইসলাম, মেহেদী হাসান।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিমরাইল এলাকার ম্যাক্স ইলেক্ট্রো ইন্ডাস্ট্রিজ ও মুনস্টার মার্কেটিং প্রাইভেট লিমিটেড নামে একটি কারখানায় অভিযান চালায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। কারখানাটির ভেতরে কয়েকটি গুদামে বৃহৎ আকারের সনি, স্যামসাং, এলজি ও প্যানাসনিক ব্র্যান্ডের বিপুল পরিমাণ নকল এলইডি টিভি, এসি, মাইক্রোওভেনসহ বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী মজুদ করা অবস্থায় পাওয়া যায়।

পাশাপাশি আরও কয়েকটি গুদামে ফগ, কোবরা, লাবাম্বা, মিলিয়ান ও অরেঞ্জসহ বিদেশী ব্র্যান্ডের বিপুল পরিমাণ বডি স্প্রে এবং এয়ার ফ্রেশনারও মজুদ অবস্থায় পায়। এ সময় ওই কারখানার হিসাবরক্ষক কর্মকর্তাসহ নকল পণ্য সামগ্রী তৈরিতে কর্মরত ৮ জন কর্মচারিকে আটক করে ডিবি পুলিশ।

খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ।

পরে গণমাধ্যমকে দেয়া ব্রিফিংয়ে জেলা পুলিশ সুপার জানান, কারখানাটিতে উৎপাদিত প্রসাধনী সামগ্রীগুলো বিষাক্ত ও ভেজাল কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি করা হয়, যা ব্যবহারে ক্যান্সারসহ নানা ধরনের জটিল চর্মরোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এখানে উৎপাদিত এসব নকল প্রসাধনী সামগ্রী ও ইলেক্ট্রনিক পণ্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাজারজাত করে মানুষকে প্রতারিত করার পাশাপাশি সরকারের বিরাট অংকের কর ফাঁকি দেয়া হচ্ছে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ গণমাধ্যমকে আরও জানান, হাজী বেলায়েত হোসেন নামে রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকার এক ব্যক্তি এই নকল কারখানাটি দীর্ঘদিন ধরে পরিচালনা করে আসছেন। তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। তাকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। পাশাপাশি আটককৃতদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।