সিংগাইরে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

মিজানুর রহমান বাদল: মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার সাহরাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আশরাফ হোসেনের বিরুদ্ধে ওই স্কুলের ৮ম শ্রেনীর জনৈক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ ওঠেছে। উপজেলার গোপাল নগর গ্রামে শিক্ষকের নিজ বাড়িতে নোট দেয়ার কথা বলে ডেকে এনে এ ঘটনা ঘটায়। ঘটনাটি প্রকাশ পাওয়ায় এলাকায় টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় সাহরাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে স্থানীয় বাসিন্দা ও শিক্ষার্থী অভিভাবকেরা অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন করেছেন। এতে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ চোকদারসহ অনেকেই বক্তব্যে বলেন,শিক্ষকের শাস্তি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি,স্কুলের প্রধান শিক্ষকের অপসারনের দাবিসহ ভবিষ্যতে এর রকম ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয় এমন কথা তুলে ধরেন। মানববন্ধনে উপস্থিত সবাইকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেলা রহমত উল্লাহ্ধসঢ়; ও ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন ঘটনা তদন্ত করে বিচারের আশ্বাস দেন। অভিযুক্ত শিক্ষক আশরাফ হোসেন উপজেলার সায়েস্তা ইউনিয়নের গোপাল নগর গ্রামের মাঈনুদ্দিন খানের পুত্র ও ওই স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমানের ভাগিনা । স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, গত মঙ্গলবার দুপুরে ৮ম শ্রেনীর জনৈক ছাত্রীকে নোট দেওয়ার কথা বলে তার বাসায় ডেকে নেন ওই শিক্ষক। শিক্ষার্থীকে গোলাপ ফুল উপহার দিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দেন। সেই সঙ্গে জড়িয়ে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় ওই স্কুল ছাত্রী চিৎকার করলে বাইরে অবস্থান করা দু‘সহপাঠি এগিয়ে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে।এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করে। ওই দিন সন্ধ্যার পর স্থানীয় প্রভাবশালীরা স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি,স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন। বিচারের নামে শাস্তিস্বরুপ অভিযুক্ত শিক্ষককে চড়-থাপ্পর দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক অভিযুক্ত আশরাফ হোসেনকে চড়-থাপ্পর দেওয়ার কথা স্বীকার করেন।

ভিকটিম জানায়, আমি ও আমার দু’সহপাঠিকে আশরাফ স্যার দীর্ঘদিন যাবৎ উত্যক্ত করে আসছিল। বিষয়টি আমরা আমাদের নুরজাহান ম্যাডাম ও বাতেন স্যারকে জানিয়েছি। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার আশরাফ স্যার টি-ফিনের সময় আমাকে নোট দেওয়ার কথা বলে তার বাসায় যেতে বলে। আমি দু‘সহপাঠি সাথে নিয়ে স্যারের বাসায় যাই। এ সময় স্যার আমাকে তার কক্ষে নিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে জড়িয়ে ধরেন। পরে সহপাঠিদের সহযোগিতায় আমি তার কাছ থেকে রক্ষা পাই। অভিযুক্ত শিক্ষক আশরাফ হোসেন অভিযোগ অস্বীকার বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। একটি চক্র আমার বিরুদ্ধে গুজব ছড়াচ্ছে। এদিকে, ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক একেএম নজরুল ইসলাম বলেন,ঘটনা শুনে আমি মেয়ের বাড়ি গিয়েছি। বাকি কথা এড়িয়ে জান। অপসারনে কথা জানতে চাইলে এ প্রতিবেদককে বলেন,কেন আমার অপসারন চায় আমি জানি না। সাহরাইল উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন,মৌখিক অভিযোগ পেয়ে শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এবং অভিভাবক সদস্য আলাউদ্দিন পত্তনদারকে প্রধান করে ৫ সদস্য কমিটি গঠন করা হয়েছে।তদন্তপূর্বক ঘটনার সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। মানববন্ধনে আপনার অপসারনের কারন জানতে চাইলে এ প্রতিবেদককে বলেন,আমার অপসারন চায় কেন আমি জানি না। উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেলা রহমত উল্লাহ্ধসঢ়; বলেন,ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি,সহকারি শিক্ষক,প্রধান শিক্ষক অপসারন/বরখাস্ত আমি করতে পারব না তবে এদের বিরুদ্ধে আমার কাছে লিখিত অভিযোগ দিলে মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরকে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশ করা হবে।