কলাপাড়ায় ১০ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় ভেঙ্গে দিলো নির্মানাধীন ভবনের দেয়াল

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় দশ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় নির্মানাধীন ভবনের দেয়ালসহ স্থাপনার একটি অংশ ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। নষ্ট করা হয়েছে নির্মানাধীন ভবনের বিভিন্ন স্ট্রাকচার। এমনকি মারধর করা হয় নির্মানাধীন ভবনের মালিক নাজির হোসেনের ছেলে বায়েজিদ হোসেন ও রাকিব হাসানকে। এরা কলাপাড়া হাসসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় কলাপাড়া উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বুধবার একটি মামলা হয়েছে। আদালত কলাপাড়া থানার ওসিকে এজাহার নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। মামলায় আব্দুল হক মৃধা, সবুজ গাজীসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। মামলায় বলা হয়েছে, সোমবার দুপুরে প্রকাশ্যে এ হামলা ভাংচুর ও মারধরের চালানো হয়। নাজির হোসেন জানান, পায়রা পোর্টের জন্য সরকার বেশিরভাগ জমি অধিগ্রহন করেন। এ কারণে তিনি ১৩ একর জমি বাবদ অধিগ্রহনের দুই কোটি টাকা পেয়েছেন। তিনি জমি হারিয়ে প্রাপ্ত টাকা দিয়ে বসবাস ও ব্যবসার জন্য লালুয়ার বানাতিবাজারে একটি বহুতল স্থাপনার কাজ শুরু করেন। যেদিন ব্যাংক থেকে ৩১ লক্ষাধিক টাকা উত্তোলন করেন এরপর থেকে চাঁদাবাজ ওই চক্র দশলাখ টাকা দাবি করে আসছিল। যা না পেয়ে নির্মানাধীন ভবনের কাজ বন্ধ করতে হামলা তান্ডব চালিয়ে দেয়াল গুড়িয়ে দেয়। দিনের বেলা সশস্ত্র হামলা তান্ডবে বানাতিবাজারের মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। নাজির হোসেন আরও জানান, তিনি তার নির্মানাধীন স্থাপনার একটি অংশ পুলিশ ফাঁড়ির জন্য ভাড়া দিয়েছেন। বর্তমানে এ চাঁদাবাজচক্র গোটা লালুয়ায় অধিগ্রহণকৃত সাধারণ কৃষক-জেলে পরিবারকে হয়রাণি করে আসছে। ক্ষতিপুরনের টাকা তুলতে গেলেই চাঁদা দাবি করে আসছে। বর্তমানে নাজির হোসেনসহ তার গোটা পরিবার আছেন আতঙ্কের মধ্যে। এঘটনায় কলাপাড়া প্রেসক্লাবে একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় কলাপাড়া থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, আদালতের নির্দেশনামতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।