বাউফলে যৌতুক লোভী স্বামীর নির্মম নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ

অতুল পাল: বাউফলে যৌতুক লোভী এক পাষন্ড স্বামীর নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছেন রোজিনা বেগম (২৫) নামের এক গৃহবধূ। যৌতুকের দাবিতে রোজিনা বেগমের স্পর্শকাতর স্তানগুলোতে নির্যাতন করে ক্ষতবিক্ষত করেছে পাষন্ড স্বামী। বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) রাতে অসুস্থ গৃহবধূ রোজিনা জানায় চার বছর আগে বাউফল উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের বাজেমহল গ্রামের আব্দুল রাজ্জাক হাওলাদারে ছেলে রুহুল আমিনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। কালিশুরী ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামে আমার বাবার বাড়ি। বিয়ের সময় আমার বাবা জীবিত ছিলেন নাা। বড় ভাই ইউসুফ হাওলাদার বোনের সুখের জন্য ভগ্নিপতিকে দর্জির কাজ করে স্বর্ণালংকার ও আসবাবপত্রসহ প্রায় ২ লাখ টাকার মালামাল দেয়। কিন্তু বিয়ের পর থেকে আরো যৌতুকের দাবিতে স্বামীর অত্যাচার নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে রোজিনার স্বাভাবিক জীবন। মাঝে মধ্যেই মারধরসহ খেতে না দেয়ার মত অমানবিক জীবন কাটাতে হতো রোজিনাকে। বিয়ের ৪/৫ মাস পর মোটর সাইকেল কেনার দাবী করেন রুহুল আমিন। ভাই ইউসুফ হাওলাদার জানান রুহুল বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে আমার কাছ থেকে অনেক টাকা নিয়েছে। বোনের সুখের কথা চিন্তা করে প্রথমে ৯৫ হাজার তার পরে ৩৫ এবং কয়েক মাস আগে ২০ হাজার টাকা দেয়া হয়ছে। কিছুদিন যেতে না যেতেই রুহুল আমিন বায়না ধরে তাকে ব্যবসা করার জন্য ১ লাখ টাকা দিতে হবে। বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক দেওয়ার অক্ষমতার কথা ভেবে রোজিনা দিনের পর দিন অনেকটা নিরবেই অত্যাচার নির্যাতন সহ্য করতেন। রোজিনার বেগমের তিন বছরের আইরিন ও জামিলা নামের চার মাস বয়সী ২টি কন্যা সন্তান রয়েছে। বুধবার (১৬ অক্টোবর) রাতে রুহুল আবার টাকার জন্য রোজিনাকে চাপ দেয়। এসময় টাকা আনতে অস্বীকার করলে নির্যাতনের খরগ নেমে আসে রোজিনার ওপর। কৌশল করে রোজিনার গোপন অঙ্গে পেটানো হয়েছে যাতে কাউকে দেখাতে না পারে। শরীরের স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে জখম করে ঘরের মধ্যে আটকে রাখে। খবর পেয়ে বড় ভাই ইউসুফ স্থানীয় মহিলা ইউপি সদস্য লিপি আক্তারের সহায়তায় রোজিনাকে উদ্ধার করে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সে নিদারুন কষ্ট নিয়ে হাসপাতালের বিছানায় পড়ে রয়েছে। এখনো পর্যন্ত স্বামী রুহুল তাকে দেখতে পর্যন্ত আসেনি। বাউফল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এখনো কোন অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।