জঙ্গি পৃষ্ঠপোষকতার অভিযোগে সাঁথিয়ায় আটক মাদরাসার অধ্যক্ষ বরখাস্ত

আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ার ধুলাউড়ি কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসাইনকে সাময়িক বরখান্ত করেছে মাদরাসা পরিচালনা কমিটি । তার বিরুদ্ধে জামায়াত ও জঙ্গি কার্যক্রমে পুষ্ঠপোষকতা করার অভিযোগ রয়েছে। বিপুল পরিমান জঙ্গিবাদ বই ল্যাপটপসহ গত রবিবার রাতে পাবনার মনসুরাবাদ এলাকার ৫ নং সড়কের ১১৯ নম্বর বাড়ি থেকে তাকেসহ ১৩ নারী জামায়াত কর্মীকে গ্রেফতার করে পাবনা সদর থানা পুলিশ। মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিন বলেন বুধবার তাকে বরখাস্তের করা হয়েছে। তিনি জানান, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে তাকে বরখাস্ত করা হয়। মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিন জানান, মাদরাসার অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসাইন আওয়ামীলীগ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের প্রশংসা করে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতেন। তিনি ওই সব অনুষ্ঠানে নিজেকে উপজেলা ওলামালীগের নেতা বলে পরিচয় দিতেন। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাকে জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু বলতেও দেখা গেছে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আমরা খোঁজ নিয়ে জেনেছি অধ্যক্ষকে জামিনে ছাড়াতে ইতোমধ্যে জামায়াত ও শিবির নেতারা তৎপরতা শুরু করেছে। নাম প্রকাশে না করার শর্তে স্থানীয় অনেকেই জানান, ধুলাউড়ি মাদরাসার অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসাইন সাঁথিয়ায় ওলামালীগের পরিচয় দিয়ে নেতা কর্মীদের সাথে মিশে স্বার্থ উদ্ধার করত। অথচ পাবনাসহ বিভিন্ন স্থানে তিনি জামায়াত ও জঙ্গি সংগঠনের পৃষ্ঠপোষকতা করতেন। তারা আরও জানান, আনোয়ার হোসাইন ছাড়াও অনেক জামায়াত নেতাকর্মী ও মাদরাসার শিক্ষক সাঁথিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতাদের সঙ্গে মিশে দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করছে। এব্যাপারে সাঁথিয়া উপজেলা ওলামালীগের যুগ্মআহ্বায়ক জিয়াউর রহমান জানান, আনোয়ার হোসাইন নামে কেউই ওলামালীগের আহ্বায়ক কমিটিতে নেই। তিনি হয়তো স্বার্থ সিদ্ধির জন্য ওলামালীগের পরিচয় দিতেন। । সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদ জানান, মাদরাসা অধ্যক্ষকে সামময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গ্রেফতারের পর পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাছিম আহম্মেদ জানান, দোতলা বাড়িটির নিচতলা জামায়াতের নারী সংগঠনের আস্তানা ছিল। এখান থেকেই তিনি নাশকতার ছক পরিচালনা করতেন। তাদের সন্ত্রাস বিরোধী আইনে মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে পাবনা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।