সাঁথিয়ায় ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ, ঘটকসহ ৩ জনের কারাদন্ড

আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল মনিরা খাতুন নামে ৫ম শ্রেণির ছাত্রী। বিয়ের আসর থেকে ঘটক, বরের চাচা ও বন্ধুকে আটক করে কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। জানাগেছ শুক্রবার রাতে টলট গ্রামের মনিরুল ইসলামের মেয়ে ৫ম শ্রেণির ছাত্রী মনিরা খাতুন (১২) এর বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। এমন সংবাদের ভিত্তিতে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস,এম জামাল আহমেদ ও থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামানসহ সঙ্গীয় ফোর্স। এসময় ইউএনও’র উপস্থিতি টের পেয়ে মেয়ে বাবা ও বরসহ অনেকেই পালিয়ে গেলেও বাল্যবিয়ে দেবার চেষ্টায় বিয়ের আসর থেকে ঘটক ইসমাইল হোসেন (৫৫), কাবাসকান্দা গ্রামের বরের চাচা আনোয়ার হোসেন (৩২) ও বন্ধু শাহীন শেখকে আটক করা হয়। আটককৃতদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজেষ্ট্রেট ও নির্বাহী অফিসার এস,এম জামাল আহমেদ বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর ৮ ধারা মোতাবেক প্রত্যেককে ১ মাস করে কারাদন্ড প্রদান করেন। পরে নির্বাহী অফিসারের হেফাজতে থাকা ৫ম শ্রেণির ছাত্রী মনিরাকে ১৮বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে মুচলেকা নিয়ে মা হাসিনা খাতুনের হাতে তুলে দেওয়া হয়। সাজাপ্রাপ্ত তিনজনকে সাঁথিয়া থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করা হয়। এদিকে ৫ম শ্রেণির ছাত্রী মনিরা খাতুনের শিক্ষা বাবদ সকল খরচের দায়িত্ব উপজেলা প্রশাসন বহন করবে মর্মে নির্বাহী অফিসার জামাল আহমেদ ছাত্রীর মা হাসিনা খাতুনকে আশ্বাস দেন।