মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাক্ষমতাসীন দলের সভাপতি হয়েও বাড়ী ছাড়া রাবেয়া ইকবালের পরিবার

ক্ষমতাসীন দলের সভাপতি হয়েও বাড়ী ছাড়া রাবেয়া ইকবালের পরিবার

জি এমন মিন্টু: কেশবপুরে মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়েও রাজনৈতিক কষাঘাতে জর্জরিত রাবেয়া ইকবালের পরিবার। আওয়ামী পরিবারের সন্তান হওয়া সত্বেও ভয়ে ঐ নেত্রীর দু- ছেলে আকাশ ও তুর্জ খাঁনকে বাড়ী ছাড়া হতে বাধ্য করা হয়েছে।

এই প্রতিবেদকের সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে কেশবপুর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি রাবেয়া ইকবাল তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন,খুলনার বসুপাড়ার সাবেক সেনা সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা মৃত আবুল হোসেন বিশ্বাস ও মা সকিনা বেগমের কোল জুড়ে তিনি পৃথবীর আলো দেখেন। বড় ভাই মোছাদ্দেক আহমেদ(বুলবুল) ছিলেন সক্রিয় মুক্তিযোদ্ধা, মেঝ ভাই ফেরদৌস আহমেদ (স্বাধীন) পরবর্তি ৭২/৭৩ সালে খুলনা সিটি কলেজ ছাত্রলীগের ভি.পি ও এক বোন ২৫ নম্বর মহিলা ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ছিলেন। এক কথায়, খুলনাবাসী তাদের পরিবারকে আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা পরিবার হিসেবে জানেন। ১৯৯২ সালে খুলনা সিটি কলেজ থেকে তিনি বি.কম পাশ করেন। ঐ বছরের ১০ জুলাই কেশবপুর শহরের মধ্যকুল গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান খাঁনের ছেলে ইকবাল খাঁনের সাথে তার বিয়ে হয়। স্বামী ইকবাল খাঁন রাজপথ কাপানো মজিব সেনার মধ্যে এক অন্যতম নাম। ১৯৮২/৮৩ সালে কেশবপুরের রাজপথ কাপানো ছাত্রলীগের এক উজ্জল নক্ষের নাম ইকবাল খাঁন। ১৯৯০ সালে তার স্বামী কেশবপুর উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ছিলেন। স্বামীর পরিচয়ের পাশাপাশি তিনিও কেশবপুরে আওয়ামী রাজনিতিতে সক্রিয় হন। আওয়ামী রাজনিতিতে তার স্বামী ইকবাল খাঁন সক্রিয় ভুমিকা রাখার কারনে তিনি বারবার বিএনপির সন্ত্রাসী ক্যাডারদের হাতে হামলা-মামলার শিকার হয়েছেন।১৯৯৩ সালের সেপ্টম্বর মাসে তার স্বামীকে বিএনপির স্বসন্ত্র ক্যাডাররা প্রকাশ্যে রাজপথে মারপিট করে মৃত ভেবে ফেলে রেখে যায়। মুমুর্ষবস্থায় তাকে উদ্ধার করে খুলনা ২৫০ শর্য্যা হাসপাতালে ভর্তি করার পর কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করলেও আল্লাহর রহমতে তিনি বেঁচে যান।

স্বামীর পাশাপাশি তিনিও আওয়ামী রাজনিতিতে সক্রিয় ভুমিকা রাখায় কেশবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান সফল সভাপতি এস.এম রুহুল আমিন ও সাধারন সম্পাদকের নজরে আসেন তিনি। এরপর ২০১৬ সালে তিনি কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী মহিলালীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সকলের শ্রদ্ধাভাজন রুহুল সারের পক্ষে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করায় আওয়ামীলীগের অপর গ্রুপের(এম.পি) গলার কাটা হয়ে দাঁড়ায় তিনি। শুধুমাত্র দলের সভাপতি/সম্পাদকের পক্ষ অবলম্বন করায় তিনিসহ তার পরিবারের উপর নেমে আসে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কষাঘাত। তিনি নিজে উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হওয়া সত্বেও কেশবপুরের বর্তমান সংসদের পৃষ্টপোষকতায় স্থানীয় প্রশাসন তার পরিবারের বিরুদ্ধে একের পর এক রাজনৈতিকভাবে হয়রানী ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দিয়ে অতিষ্ঠ করে তুলেছে। তিনি আরো বলেন, তার ছেলে আকাশ খাঁন পৌর ছাত্রলীগ করায় তাকেও পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে বেদম মারপিট করে, শুধু তাই নয় ১৬ই ডিসেম্বর রাতে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার সময় আওয়ামীলীগের অপর গ্রুপের লোকেরা তাকে পয়জন পুশ করে মেরে ফেলতে চেয়েছিল। জীবনের নিরাপত্তার ভয়ে বড় ছেলে আকাশ ও ছোট ছেলে তুর্জ খাঁনকে বাড়ীর বাইরে পাঠাতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। ছেলেদের ন্যায় তিনি ও তার স্বামী প্রতিপক্ষ গ্রুপের কাছে এক ধননের তার্গেটের শিকার হয়ে দিনাতিপাত করতে হচ্ছে। উপজেলা আওয়ামীলীগের মূলধারার নেতাদের পাশে থেকে নির্ভয়ে,সক্রিয়ভাবে যাতে দলীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করতে পারি তার সু-ব্যবস্থা গ্রহনে দলের সভানেত্রী, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments