মঙ্গলবার, জুলাই ১৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলাআক্কেলপুর পৌর মেয়রসহ ৪জনের বিরুদ্ধে মামলা, দুদককে তদন্তের নির্দেশ

আক্কেলপুর পৌর মেয়রসহ ৪জনের বিরুদ্ধে মামলা, দুদককে তদন্তের নির্দেশ

এস এম শফিকুল ইসলাম: এবার খোদ দলীয় দুই নেতা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ তুলেছেন। গোলাম মাহফুজ চৌধুরী জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে আছেন। তিনি আক্কেলপুর পৌরসভার মেয়রও। আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান ও পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক আহ্বায়ক এবিএম এনায়েতুর রহমান আকন্দ স্বপন বাদী হয়ে গত বুধবার জয়পুরহাট জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ আদালতে (সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালত) পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছেন। এবিএম এনায়েতুর রহমান স্বপনের দায়ের করা মামলায় গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরসহ চার জনকে আসামী করা হয়েছে। দুটি মামলায় গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরের বিরুদ্ধে দ-বিধির ৪০৯ সহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় অভিযোগ আনা হয়। বিশেষ জজ আদালতের বিচারক এম,এ রব হাওলাদার মামলা দুটি আমলে নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। সরকারি কৌঁসূলি (পিপি) নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল আদলত দুটি মামলা আমলে নিয়ে দুদককে তদন্তের নির্দেশ দেওয়ার বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন। তবে আওয়ামী লীগ নেতা পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। সংশ্লিষ্ট আদালত ও দুটি মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরের বিরুদ্ধে একই আদালতে পৃথকভাবে দুটি মামলা দায়ের করা হয়। একটি মামলার বাদী আক্কেলপুর সদরের বাসিন্দা এবিএম এনায়েতুর রহমান আকন্দ স্বপন অন্যটির আক্কেলপুর পৌর এলাকার মুকিমপুর পশ্চিম পাড়ার বাসিন্দা মজিবর রহমান। এবিএম এনায়েতুর রহমান তাঁর এজাহারে বলেছেন, গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর আক্কেলপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর দলীয় প্রভাব খাটিয়ে আক্কেলপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজসহ পাঁচটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির সভাপতি হয়েছেন। তিনি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সভাপতি হয়ে চাকুরি নিয়োগসহ বিভিন্ন কাজে দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারি অর্থ আতœসাৎ করেছেন। তিনি হঠাৎ আঙল ফুলে কলাগাছ হয়েছেন। আক্কেলপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারী গ্রান্থগারিক ফারুক

আলম চৌধুরী জাল সনদে চাকরি নেন। তদন্তে জাতীয় জাতীয় কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমি তাঁর সনদ জাল বলে ২০০৯ সালের ২৫ মার্চ কলেজের অধ্যক্ষকে জানিয়ে দেয়। একই বছরের ২৭ এপ্রিল কলেজ পরিচালনা কমিটির সভায় ফারুক আলম চৌধুরীকে কারণদশানো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। একই বছরের ৪ মে কলেজে পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কারণদশানো জন্য তাঁকে নির্দেশ দেন। একই বছরের ১৭ মে ফারুক আলম চৌধুরী লিখিতভাবে কারণদর্শানোর জবাবে উক্ত সনদ দেননি বলে স্বীকার করেন। সন্তোষজনক জবাব না পেয়ে একই বছরের ২৭ মে অনুষ্ঠিত চতুর্থ অধিবেশনে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ১৫ কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সময় বেঁধে দেয়। তদন্ত কমিটি ফারুক আলমের নামীয় তাঁর দাখিলী সনদপত্র জাল বলে একই বছরের ২৪ জুন সংশ্লিষ্টদের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করে। ফারুক আলমের সহকারী গ্রন্থগারিক পদে যোগ্যতার ঘাটতি থাকায় তাঁর গ্রহনকৃত সমস্ত সরকারি বেতন-ভাতা ফেরতসহ প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি। একই বছরের ২৯ জুন অনুষ্ঠিত সভায় তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ফারুক আলম চৌধুরীর সরকারি বেতন-ভাতাদী বন্ধে সিদ্ধন্ত নেওয়া হয়। এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে অধ্যক্ষকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। একই বছরের ২৯ জুলাই তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমি শিক্ষা র্বোডের চেয়ারম্যান ফারুক আলম চৌধুরীকে স্বপদে যোগদান করিয়ে নিয়ে ডিপ্লোমা কোর্স সম্পাদনের জন্য এক বছরের ছুটি দেওয়ার পরার্মশ দিয়ে গত ২০/১/২০১১ সালে অধ্যক্ষকে পত্র দেন। শিক্ষা র্বোডের এই সিদ্ধন্তকে চ্যালেঞ্জ করে আক্কেলপুর ডিগ্রি মহিলা কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি সৈয়দ নাজমুল হুদার হাইকোটে ৪৯২৬/২০১২ নম্বর রীট পিটিশনের প্রেক্ষিতে শিক্ষার্বোডের সিদ্ধান্ত স্থগিত করা হয়। পরে ৭/২/ ২০১৪ সালে স্থগিতাদেশ এক বছর বর্ধিত করা হয়। ৬/২/২০১৫ সাল পর্যন্ত স্থগিতাদেশ বহাল থাকে। স্থগিতাদেশ বহাল থাকা অবস্থায় ২৩/৭/২০১৪ সালে ফারুক আলম চৌধুরী স্বপদে বহাল করা হয়। আসামীরা এমপিওর সরকারি টাকা ফেরত না দিয়ে নিজেরাই ভাগবাটোয়ারা করে আতœসাৎ করেছেন। মজিবর রহমান তাঁর এজাহারে বলেছেন, তাঁর মের্সাস রোজী চাউল কল নামে চাতাল রয়েছে। এ নামে তাঁর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের ঠিকাদারী লাইসেন্স রয়েছে। তিনি সুনামের সঙ্গে চাতাল ও ঠিকাদারী ব্যবসা করে আসছেন। গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর আক্কেলপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে ও অপব্যবহার করে দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারি অর্থ আতœসাৎ করে অর্থের ভান্ডার করেছেন। পৌরসভার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক কাজের প্রাক্কলিত মূল্যের কমে দরপত্র দাখিল করেন। মেয়র বিভিন্ন মিথ্যা অজুহাত দেখিয়ে কম মূল্যে দেওয়া দরপত্র বাতিল করে অবৈধ অর্থের বিনিময়ে নিজের পছন্দের ঠিকাদার নির্বাচিত করেন। একই ভাবে তিনটি কাজে সরকারের দুই লাখ ৬০ হাজার

৫৭৩ টাকা ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু মেয়র দুর্নীতির মাধ্যমে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন। দুটি মামলার এজাহারে শেষাংশে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৪ সালের অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে গোলাম মাহফুজ চৌধুরী উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছিলেন। সেই সময় নির্বাচন কমিশনে দেওয়া হলফনামায় নিজস্ব স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির মূল্যে ১৬ লাখ ৭৯ হাজার ৪১২ টাকা ও তাঁর স্ত্রীর অস্থাবর সম্পত্তির মূল্য ২৫ হাজার টাকা দেখিয়েছেন। পরে গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসর আক্কেলপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হন। গত ২০১৫ সালের ২৯ নভেম্বর পৌরসভার অনুষ্ঠিত হয়। তিনি হলফনামায় নিজস্ব অস্থাবর সম্পদের পরিমাণ ২৩ লাখ ৬৭ হাজার ৯৯০ টাকা আর স্থাবর সম্পদেন পরিমাণ ১০ লাখ ৯১ হাজার ৪১২ টাকা দেখিয়েছেন। তাঁর স্ত্রীর নামে অস্থাবর (নগদ) ৫ লাখ ২০ হাজার ৬৯৬ টাকা দেখিয়েছেন। বর্তমানে গোলাম মাহফুজ চৌধুরী অবসরের দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারের বিপুল পরিমাণ টাকা আতœসাৎ করেছেন। জয়পুরহাট শহরের তাঁর দুটি বিরাট অট্টলিকা নির্মাণ করেছেন। যার মূল্যে কয়েক কোটি টাকা হবে। নিজের ব্যবহারের জন্য একটি গাড়ী (ঢাকা মেট্রো-খ/১৮১৯১২) সহ অবৈধভাবে বহু সম্পদের মালিক হয়েছেন। এছাড়া তাঁর স্ত্রীর নামে ২৭ লাখ টাকার একটি কার (ঢাকা- মেট্রো-গ-২৮২৫৪০) রয়েছে। মামলা বাদী মজিবর রহমান বলেন, গোলাম মাহফুজ চৌধুরীর মাত্র কয়েক বছর আগে মোটরসাইকেলে চড়ে বেড়াতেন। তিনি পৌর মেয়র হওয়ার পর দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ সম্পদ অর্জন করেছেন। পৌরমেয়র মেয়র গোলাম মাহফুজ বলেন, জয়পুরহাটে আমার একটি বাসা রয়েছে। সেটিও আমি ও আমার স্ত্রীর নামে ইসলামী ব্যাংক থেকে ৬০ লাখ ঋণ নিয়ে করেছি। আমার একটি গাড়ী রয়েছে। সেটিও ঋণের টাকায় কেনা। মজিবর রহমানের স্ত্রী পৌরসভার কাউন্সিলর ও এনায়েতুর রহমান পৌরসভা নির্বাচনে আমার প্রতিদ্বন্দী ছিলেন। সামনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরে দলের পদ-পদবী প্রত্যাশীরা আমার বিরুদ্ধে ষড়ষন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়েছেন। দুদকের সঠিক তদন্তে আমার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ মিথ্যা বলে প্রমাণিত হবে বলে আশা করছি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments