থেমে নেই বেলকুচির সেই ভূয়া ডাক্তার সোলায়মান হোসেনের অপচিকিৎসা

এম এ মুছা: থেমে নেই বেলকুচির সেই ভূয়া ডাক্তার সোলায়মান হোসেনের অপচিকিৎসা আবারও রমরমা বানিজ্য চলাচ্ছে সিরাজগঞ্জের বেলকুচির কথিত ভূয়া ডাক্তার সোলায়মান হোসেন।
গত ২১ সেপ্টেম্বর ও ১৫ অক্টবরে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ও অনলাইন পোর্টালসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স মিডিয়াতে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পরেও থেমে নেই তার চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা। এতে জনমনে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তবে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর বিষয়টি জেলা সিভিল সার্জনের নজরে আসলে তিনি বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মাহবুব হোসেনকে তদন্ত করার নির্দেশ প্রদান করেন। পরে তদন্তের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটিতে সে পাইলস ,অর্শ্ব,গেজ,ও পলিপাস এ ধরনের অপারেশন করে থাকেন প্রমানিত হয়।

ঐ সময়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাবেক কর্মকর্তার কাছে গত ১৫ অক্টোবরে লিখিত ভাবে অঙ্গীকার করেন যে আমি আর এই ধরেন অপারেশন করবোনা। কিন্তু সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। কোন কিছুর তোয়াক্কা না করে সে আবারও চোখ,পাইলস অর্শ্ব,গেজ, পলিপাস,ও জটিল রোগের অপারেশন করছেন । যার কোন নুন্যতম সনদ নেই তবুও এসব অপচিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। এ ধরনের অপচিকিৎসার ফলে সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্য ঝুকির মধ্যে পরছে এবং ক্ষয়ে যাচ্ছে বিপুল অর্থ।

এ দিকে তার কাছে চিকিৎসা নিতে আসা গত ২৭ জানুয়ারী (সোমাবার) উল্লাপাড়া উপজেলার বেতকান্দি গ্রামের মজিবর রহমানের স্ত্রী শান্তনা খাতুন (৪৫) জানান, আমার অনেক দিন হলো চোখের সমস্যা অনেক ডাক্তার দেখিয়েছি কিন্তু আমার এক আত্নীয় আমাকে সালমা ক্লিনিকে সোলায়মান ডাক্তরের কাছে নিয়ে আসে। সোলায়মান ডাক্তার আমার চোখের অপারেশন করেছেন । কত টাকা নিয়েছেন অপারেশনের বাবদ তার উত্তরে রোগীর স্বামী মজিবর রহমান বলেন, অপারেশন বাবদ সাত হাজার টাকা নিয়েছেন। তখন কান্না জনিত কন্ঠে শান্তনা খাতুন বলেন চোখ ঠিক হবে কি না জানিনা।

আর কামারপাড়া পূবারী ফ্যাশান লিমিটিডের গার্মেন্ট শ্রমিক সাইফুর রহমান জানান, কয়েকদিন আগে আমি সালমা ক্লিনিকে আসি নাকের সমস্যার জন্য। ডাক্তার সোলেয়মান অপারেশন করেন। অপারেশন করার পর নাক থেকে প্রচুর রক্ত বের হয়। রক্ত পরা বন্ধ না হওয়ায় আমি অন্য ডাক্তরের মাধ্যমে রক্ত পরা বন্ধ করি। কেনো তিনি চিকিৎসার জন্য সালমা ক্লিনিকে আসলেন জানতে চাইলে বলেন আমি বিভিন্ন জায়গায় লিফলেট লাগিয়েছে সেটা দেখে এসেছি সে ডাক্তার কিনা আমি জানিনা তবে শুনেছি ভূয়া ডাক্তার। আমি এ ধরনের ভূয়া ডাক্তারের উপযুক্ত শাস্তি হওয়া দরকার। সে যেন আমার মত আর কাউকে অপচিকিৎসা না দিয়ে সমস্যার মধ্যে না ফেলতে পারে।

ভূয়া ডাক্তার সোলায়মানের ক্লিনিকের আশে পাশের থাকা প্রতিবেশিরা জানায় , এই সোলায়মান হোসেন ডাক্তার না হয়ে রোগী দেখেন প্রতিনিয়ত। নিজেই ডাক্তার বলে মুকুন্দগাঁতী বাজারে ঢাকা ব্যংকের পাশে সালমা ক্লিনিকে রোগীদের সঙ্গে চিকিৎসা সেবার নামে প্রতারণা করছে। প্রশাসনের নজরদারী না থাকার কারণে দীর্ঘদিন এভাবেই সে প্রতারণা করে আসছে।

তবে কথিত ভূয়া ডাক্তার সোলায়মানের কাছে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জানতে চাইলে, সে কোন কথা না বলে তার ক্লিনিক থেকে দৌড়ে অন্যত্র চলে যান ।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ এ,কে,এম মোফাখখারুল ইসলাম বলেন ,আমি এখানে নতুন এসেছি। আমার বিষয়টা জানা নেই।
তবে এ ধরনের অপচিকিৎসা করে থাকলে বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে।

জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদুল ইসলাম জানান, আমরা ইতিপূর্বে তার ব্যাপারে তদন্তের জন্য প্রতিনিধিদের পাঠিয়েছিলাম। তখন তার ওখানে কোন বেড বা অনুসাঙ্গিক সরঞ্জামদি পাওয়া যায়নি। আমি এ ব্যাপারে এখনই স্থানীয় কর্মকর্তাকে দিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি।