এনায়েতপুরে বেতিল বাজারে অগ্নিকাণ্ডে ৭টি দোকান ভস্মীভূত, ৪০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি

মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার বেতিল বাজারে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সিরাজগঞ্জ, রায়গঞ্জ এবং বেলকুচি থেকে আসা ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট ১ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। তবে এর মধ্যে সম্পুর্ন পুড়ে যায় ৭টি দোকান ও ভিতরে থাকা প্রায় ৪০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল। ফায়ার সার্ভিস ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রোববার ভোর রাতে বেতিল বাজারের হাজী নজরুল ইসলাম মার্কেটের সুব্রত কুমারের কম্পিউটারের দোকান থেকে হঠাৎ আগুনের সুত্রপাত হলে মার্কেটের আরো ৭টি দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। তখন স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিস এবং ৯৯৯ কল সেন্টারে খবর দিয়ে দোকান থেকে ঘুমিয়ে থাকাদের উদ্ধার ও আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। পরে ভোর সাড়ে ৬টার দিকে সিরাজগঞ্জ, রায়গঞ্জ ও বেলকুচির ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট স্থানীয়দের সহযোগীতায় ১ ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এর মধ্যে রবিউল ইসলাম, জামিল হোসেনের ইলেট্রনিক্স ও মুদি খানার দোকান, হাসান আলী দর্জি কাপড়ের দোকান, অসীম হলদারের কম্পিউটার, টিটুর সেলুন এবং ডাঃ আক্কাস আলীর ওষুদের দোকান সম্পুর্ন ভষ্মিভুত হয়। এখানে দোকানের যাবতীয় মালামাল, ফ্রিজ, টিভি, কম্পিউটার পুড়ে যাওয়ায় ব্যবসায়ীরা এখন নিঃস্ব। সংসার চালানোর মত কারো স্বামর্থ রইলোনা। এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত দোকানী জামিল হোসেন কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার মুদি খানা দোকানের উপরেই পুরো পরিবার চলতো। এখন কি হবে জানিনা। আল্লাহ পাক ছাড়া আমার গতি নেই। এমন হবে কখনো কল্পনা করিনি। আগুনের ভয়াবহতা আমাদের সব কেড়ে নিয়েছে। এদিকে খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা না হলে ক্ষতির মাত্র কয়েক গুন ছাড়িয়ে যেত বলে জানিয়েছেন ফায়ার সিরাজগঞ্জ ফায়ার এন্ড সিভিল সার্ভিস ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মঞ্জিল হক। তিনি জানান, আগুনে আগুনে ৭টি দোকানের প্রায় সবই পুড়ে গেছে। এতে ক্ষতির পরিমান প্রায় ৪০ লাখ টাকার মত। আর সবার সহযোগীতা ছিল বলে আগুন ছড়িয়ে পড়েনি। বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকেই ধারনা করি আগুনের সুত্রপাত হয়েছে।