বাউফলে জরাজীর্ণ বিদ্যালয়, ঝুঁকির মধ্যে পাঠদান

অতুল পাল: বাউফলের ৭৮ নং কালাইয়া কোর্টপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান। যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে মারাত্নক দুর্ঘটনা। ঘটতে পারে প্রাণহানী। কর্তৃপক্ষ বিদ্যালয় ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করলেও কক্ষের অভাবে ওই ভবনেই জীবন বাজি রেখে পাঠদান করানো হচ্ছে। এরফলে ব্যহত হচ্ছে পাঠদান এবং অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিরাপত্তার কথা ভেবে অন্য বিদ্যালয়ে তাদের ভর্তি করাচ্ছেন। ফলে দিন দিন কমে যাচ্ছে শিক্ষার্থীর সংখ্যাও। সরেজমিন দেখা গেছে, বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেণিকক্ষের দরজা নেই, জানালা ভাঙা, বসার বেঞ্চগুলো নরবরে। পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থাও নেই। ছাদ ও ওয়ালের পলেস্টরাল খসে খসে পড়ছে। পিলার ও ছাদের রড বেরিয়ে গেছে। এরমধ্যেই বিভিন্ন শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিয়ে পাঠদান করে যাচ্ছেন শিক্ষকরা। শ্রেণিকক্ষ সংকটের কারণে ব্যহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। শিক্ষার্থীদের মধ্যে নেই কোন কোলহল কিংবা উচ্ছাস। লাইব্রেরির অবস্থাও ঝুঁকিপূর্ণ। এছাড়া আসবাপত্রের অভাব রয়েছে। বিদ্যালয়টিতে অনেকটাই ভূতুরে পরিবেশ বিরাজ করছে। স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, বিদ্যালয়টি ১৯৩৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর একটিমাত্র ভবন নির্মাণ করা হয়েছিলো। দীর্ঘ বছর ধরেই ভবনটির অবস্থা নাজুক। নতুন ভবন নির্মাণ কিংবা বর্তমান ভবনটি সংস্কার না করায় কমে যাচ্ছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অনিক, সাফা, সায়েম ও উম্মে হাবীবাসহ উপস্থিত প্রায় সকল শিক্ষার্থীই বলেন, “অন্য সব স্কুল কত সুন্দর, আমাগো স্কুল ভাঙা। ভাঙা স্কুলে পড়তে মন চায় না। আমাগো নতুন স্কুল চাই।” শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা জানান, গত বছর দু’দফায় উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার সুজন হালদার এবং সুভাষ চন্দ্র বিদ্যালয়টি পরির্দশন শেষে লিখিত প্রতিবেদনের মাধ্যমে ভবনটিকে ঝুকিপূর্ণ ঘোষণা করে গেছেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ বিদ্যালয়টির উন্নয়নে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ও অভিভাবক তৌহিদ হাসান উজ্জ্বল বলেন, খুব দ্রুত নতুন বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ করে শিক্ষার্থীদের ঝুঁকিমুক্ত করা প্রয়োজন। অন্যথায় যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাজনীন সুলতানা বলেন, বিদ্যালয়ের ১৭৫জন শিক্ষার্থী নিয়ে সব সময় আতংকে থাকি। কখন জানি দুর্ঘটনা ঘটে যায়। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি

ফয়জুল হক রিপন জানান, বিদ্যালয়ের সমস্যাগুলো আমরা উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে একাধিকবার অবহিত করেছি। কিন্তু কার্যকর কোন ব্যবস্থাই নেয়া হচ্ছে না। এব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. রিয়াজুল হক জানায়, ইতিমধ্যে উপজেলার ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়গুলো চিহৃত করা হয়েছে। অচিরেই এর সংস্কার কিংবা পূর্ণনির্মাণের কাজ শুরু করা হবে।