বছর না ঘুরতেই রংপুরে বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ

জয়নাল আবেদীন:গত বছরের ১৮ মে স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরী বিআরটিসির বাস উদ্বোধন করার বছর না ঘুরতেই রংপুরে বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেল। ফলে বিপাকে পড়েছেন হাজার হাজার যাত্রী যাদের অধিকাংশ শিক্ষার্থী এবং স্বল্প আয়ের মানুষ । আর এই বন্ধের অভিযোগ উঠেছে খোদ রংপুর জেলা মোটর মালিক সমিতির বিরুদ্ধে । রোববার এক সমাবেশের মাধ্যমে দুপুর থেকে তারা বাসগুলো চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে ।মালিক সমিতি ৩দিনের আলটিমেটাম দেয়ার সময় পার না হতেই তারা রংপুরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে ৮টি বাস আটকে রাখে।রংপুর মোটর মালিক সমিতির নেতারা জানান, সরকারি যে আইন রয়েছে তাতে সিটি কর্পোরেশনের বাইরে এসব ডাবল ডেকার বাস চলাচল করতে পারবে না। সে কারণে বাধা দেয়া হয়েছে। রংপুর বিআরটিসির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার গোলাম ফারুক জানান, রংপুরের পাগলাপীর থেকে পীরগঞ্জ ও বগুড়া থেকে সৈয়দপুর পর্যন্ত বিআরটিসির ৮টি ডবল ডেকার বাস চলাচল করে। ভাড়া কম হওয়ায় যাত্রীরা স্বাচ্ছন্দ্যে যাতায়াত করে। কিন্তু রংপুর মোটরমালিক সমিতির বাধার এই বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। তিনি বলেন বাসগুলো এসব রুটে চলাচল করছিল। এসব বাসে প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা ও নারীদের আলাদা আসন ব্যবস্থা সংরক্ষনের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া প্রতিবন্ধীদের ভাড়া নেয়া হয় না। রংপুর জেলা মোটরমালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আজিজুল ইসলাম রাজু বলেন বিআরটিসির বিপুল সংখ্যক বাস রংপুরের বিভিন্ন রুটে চালাচল করে। এতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু সিটি কর্পোরেশনের বাইরে ডবল ডেকার বাস চলাচল করতে পারবে না।বিআরটিসির রংপুর ডিপোর কর্মকর্তারা জানান, রংপুর জেলা মোটরমালিক সমিতির বাধার কারণে ডাবল ডেকার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। বিআরটিসি রংপুর বাস ডিপোর ম্যানেজার নুরুল হক জানান মটর মালিক সমিতির লোকজন তাদের ড্রাইভার হেলপার ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের মারধর করে দোতলা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। তিনি বলেন সরকারী বাস সরকারী রাস্তায় চলবে এতে তারা বাঁধা দিতে পারেনা। মটর মালিক সমিতির কর্মচারী রওনক জানান মালিক সমিতির নির্দ্দেশে আমরা দোতলা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছি। কারন সিটি করপোরেশন এলাকায় দোতলা বাস চলাচল করলে তাদের বাসে যাত্রী হয়না সে কারনে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।