কেশবপুরে চাঁদড়া মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে আয়া পদের জন্য ৬ লক্ষ টাকা উৎকোচ দাবির অভিযোগ

জি এম মিন্টু: কেশবপুরে চাঁদড়া দাখিল মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে আয়া পদের জন্য ৬ লক্ষ টাকা উৎকোজ দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় মাদ্রাসার জমিদাতা মোঃ কুদ্দুস গাজী বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে, বাদী কুদ্দুস গাজীর পিতা মৃত মোবারেক গাজী চাঁদড়া দাখিল মাদ্রাসা করার জন্য উক্ত মাদ্রাসার নামে ৪২ শতক জমি দান করেন।যার বর্তমান দাগ নং ১৩৯১। জমি দান করার সময় মৌখিক ভাবে কথা থাকে যে তার পরিবারের সদস্যদের মধ্যে কাউকে উক্ত মাদ্রাসায় যে পদের যোগ্য সেই পদে চাকুরী দিতে হবে এবং আজীবন তাদের পরিবারের যে কোন একজনকে দাতা সদস্য হিসেবে মাদ্রাসা কমিটিতে রাখতে হবে।তার পিতা জীবিত থাকা অবস্থায় দাতা সদস্য হিসেবে কমিটিতে রাখলেও তিনি মারা যাওয়ার পর তাদের পরিবারের কাউকে দাতা সদস্য হিসেবে কমিটিতে রাখে নাই। বর্তমানে উক্ত মাদ্রাসায় নিরাপত্তা কর্মী ও আয়া পদে দুই জন লোক নিয়োগের ঘোষনা দেওয়ায় তার পুত্রবধু সুমী বেগম আয়া পদে চাকুরীর জন্য আবেদ করিলে উক্ত মাদ্রাসা সুমার মোর্শারফ হোসেন সাব জানিয়ে দেন যে, জমির দাতা হিসাবে কোন চাকুরী হবে না, ছয় লক্ষ টাকা দিতে পারলে চাকুরীর ব্যবস্থা হবে। কোন উপায়ন্তর না পেয়ে কুদ্দুস গাজী গত ৩০-০১-২০২০ তারিখ বাদী হয়ে উক্ত মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। সুষ্ঠ তদন্তনের জন্য নির্বাহী অফিসার অভিযোগটি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে দায়িত্ব দেন।গতকাল শনিবার (০৮ জানুয়ারী-২০) উক্ত দুই পদের জন্য আবেদন জমাদানের শেষ তারিখ ছিলো।
কেশবপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ রবিউল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান,অভিযোগটির তদন্ত চলছে। বিধি বহির্ভুত নিয়োগ প্রদান করা হলে অবশ্যই সেটি বাতিল করে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী পরবর্তিতে উক্ত পদে নিয়োগ প্রদান করা হবে।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে চাঁদড়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মোর্শারফ হোসেন বলেন, আমার বিরুদ্ধে আয়া পদে ৬ লক্ষ টাকা দাবির অভিযোগ সম্পূর্ন মিথ্যা। বরং আমি বলেছি যে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সভাপতি বরবার উক্ত দুই পদে নিয়োগের জন্য প্রার্থীদেরকে আবেদন করতে হবে। এর পর নিয়োগ বোর্ডে পরিক্ষার মাধ্যমে দু-পদে দুই প্রার্থীকে নিয়োগ প্রদান করা হবে।