সিংগাইরে লোকালয়ে অবৈধ মশার কয়েলের কাঁচামাল তৈরীর কারখানা, জনদুর্ভোগ চরমে

মিজানুর রহমান বাদল: মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার চারিগ্রাম ইউনিয়নের দাশেরহাটি এলাকায় লোকালয়ে খোলা আকাশের নিচে মশার কয়েলের কাঁচামাল তৈরীর অবৈধ কারখানা গড়ে ওঠেছে। যার নেই কোন কোম্পানির নাম,সাইন বোর্ড, বৈধ কাগজ পত্র। এলাকার প্রভাবশালীদের ছত্র ছায়ায় নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে কারখানা চলছে ৫ মাস ধরে। কারখানায় কাঁচামাল তৈরীর কাজে ব্যবহার হচ্ছে গরুর চামড়া,পানি। দিনে কারখানায় চামড়া পুড়ানোর কাজ বন্ধ রেখে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে গভীর রাতে চামড়া গলিয়ে আগুনে পুড়িয়ে মশার কয়েল বানানোর মন্ড তৈরি করেন। এতে চামড়া পুড়ানোর র্দূগন্ধ বাতাসে ভেসে শ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে মানব দেহে প্রবেশ করে মারাতœক স্বাস্থ্যে ঝুঁকিতে পড়ছে এলাকার লোকজন।

অন্যদিকে কারখানার ধোঁয়ায় আশে পাশের ফসল,কলা বাগান,আম,কাঠাল যাবতীয় ফলমূলের মুকূল ঝড়ে পড়ছে। ক্ষেতের ঘাস খেয়ে গরু,ছাগল অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে। চামড়া পুড়া গন্ধে মানুষের জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছে। কারখানা এলাকার লোকজন মুখ বন্ধ ছাড়া চলতে পারছে না,এমন অভিযোগই এলাকাবাসীর।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,বেশ কিছু জায়গা জুড়ে লোকালয়ে খোলা আকাশের নিচে চলছে মশার কয়েলের কাঁচামাল তৈরীর অবৈধ কারখানা। যার নেই কোন মালিকের নাম,কোম্পানীর নাম,সাইন বোর্ড। বেশ কিছু শ্রমিক অবাধে রাতে পুড়ানো চামড়ার মন্ড মেশিনে ভাঙিয়ে দিনের বেলায় রোদে শুকাচ্ছে। শ্রমিকদের কাছে মালিকের তথ্য জানতে চাইলে কিছুই জানি না, বলে এক এক করে কারখানার সমস্ত শ্রমিক পালিয়ে যায়।
কারখানা এলাকার জহির উদ্দিন বলেন, রাতে যখন চামড়া পুড়ানোর কাজ শুরু করে গন্ধে রাতে ঘুমাতে পারি না। যখনই সজাগ হই তখনই গন্ধ পাই। ভাত খাওয়ার সময় গন্ধে বমি পর্যন্ত হয়ে থাকে। আমরা গরীব মানুষ নিরবে সহ্য করতে হচ্ছে।
মো.রজ্জব আলি বলেন,কারখানার ধোঁয়ায় আমার ক্ষেতের ফসল সব নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বাড়ির গাছের মুকূল ঝঁড়ে পড়ছে। ক্ষেতের খাস খেয়ে গরু ছাগল অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে। এর গন্ধে পেট ভার হয়ে থাকে। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় এ কারখানা চালাচ্ছে। আমরা ভয়ে কিছুই বলতে পারি না। গোবিন্ধল তালপট্রি এলাকার মনির হোসেন,রেজাউল করিম,মাসুদসহ একাধিক এলাকাবাসী বলেন, মশার কয়েলের কাঁচামাল তৈরীর কারখানার গন্ধে,ধোঁয়ায় আমরা মারাত্মক স্বাস্থ্যে ঝুকিতে আছি। এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোকদের মেনেজ করে কারখানা চালাচ্ছে। আমরা এর প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছি না। প্রশাসনের কাছে কারখানা বন্ধের জোড় দাবি জানাচ্ছি।
কারখানার মালিকের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্ঠা করেও সম্ভব হয়নি।

চারিগ্রাম ইউ,পি চেয়ারম্যান মো.সাজেদুল আলম তালুকদার(স্বাধীণ)বলেন, বিষয়টি শুনে আমার গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে বন্ধ করে ছিলাম। দু,দিন পর ক্ষমতাসীন দলের লোকদের সহযোগীতায় আবার চালু করেছে।
উপজেলা স্বাস্থ্যে ও প.প কর্মকর্তা সেকেন্দার আলি মোল্লাহ্ধসঢ়; বলেন, চামড়া সিন্ধু-পুড়ানোর যে গন্ধ তা বাতাসে ভেসে শ্বাস- প্রশ্বাসে মানব দেহে প্রবেশ করে ফুসফুসে ক্যান্সার,শ্বাস কষ্ঠ, জটিল-কঠিন রোগ হতে পারে। এতে শিশুরা মারাত্মক ঝুঁকিতে পরতে পারে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা বলেন,আামি বিষয়টি আপনার কাছ থেকে শুনলাম । কারখানার বৈধ কাগজপত্র না থাকলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।