লক্ষ্মীপুরে শিমের বাম্ভার ফলন, কৃষক খুশি: ৩০ কোটি টাকার শিম উৎপাদনের সম্ভাবনা

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে দিন দিন জনপ্রিয় উঠছে শীতকালিন সবজি শিম চাষ। অল্প পুঁজিতে লাভ ভালো হওয়ায় দিন দিন শিম চাষাবাদে ঝুঁকছেন এ অঞ্চলের চাষীরা। চলতি মৌসুমে এবার লক্ষ্মীপুরে এবার শিমের বাম্পার ফলন হয়েছে। অনুকল আবহাওয়া, সময়মত বীজ বোপন ও সুষম সারের ব্যবহারের ফলে শিমের এবার বাম্পার ফলন হয়েছে বলে বলে জানায় চাষীরা। আর বাজার দর ভাল পেয়ে খুশিও তারা। এখানকার উৎপাদিত শিম জেলার চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। এবার উৎপাদিত শিম থেকে ৩০ কোটি আয় হবে জানান স্থানীয় কৃষি বিভাগ। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে জেলায় ৬’শ ৯০ হেক্টর জমিতে শিমের আবাদ হয়েছে। যা গেল বছরের তুলনায় ৯০ হেক্টর বেশী। আবহাওয়া ভালো থাকায় জেলা সদরের আবিরনগর, ভবানীগঞ্জ, চর রমনী মোহন, কমলনগরের তোরাবগঞ্জ, চর মার্টিন ও রায়পুরের বিভিন্ন এলাকায় শিমের আবাদ ভালো হয়েছে। সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের চরমনসা গ্রামের কয়েকজন চাষী জানায়, চলতি মৌসুমে অনুকুল আবহাওয়া, সময়মত বীজ বোপন ও সুষম সারের ব্যবহারের ফলে এবার শিমের ভাল ফলন হয়েছে। বাজারদর ভাল থাকায় খুশি তারা। প্রতি বিঘা জমিতে শিম চাষে তাদের খরচ হয় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। যা থেকে তাদের আয় হয় ৪৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা। খরচের তুলনায় লাভ বেশী হওয়া শিম চাষাবাদে তাদের আগ্রহ বাড়ছে বলে জানান তারা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক মো. বেলাল হোসেন খাঁন জানালেন, অল্প পুঁজিতে লাভ বেশী হওয়ায় দিন দিন এ অঞ্চলে শিম চাষাবাদ জনপ্রিয় হচ্ছে। শিমের বাম্পার ফলন হওয়ায় এবার জেলায় ৭ হাজার ২’শ ৪৫ মেট্রিক টন শিম উৎপাদন হয়েছে। যার বাজার মূল্য ৩০ কোটি টাকা। আধুনিক প্রযুক্তি ও কৃষি বিভাগের প্রয়োজনীয় সহযোগীতা পেলে লক্ষ্মীপুরে সীম চাষাবাদে আরো বেশী আগ্রহী হয়ে উঠবেন চাষীরা, এমনটাই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।