ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফিরলেন ৯ হাজার প্রবাসী, কোয়ারেন্টাইনে মাত্র ১৪ জন

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গত ১ মার্চ থেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ৯ হাজার প্রবাসী ফিরেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়।
বুধবার (১৮ মার্চ) বিকেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এ তথ্য জানিয়ে মেইল পাঠিয়ে তাদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে নিয়মিত প্রতিবেদন পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সতর্কতামূলক হিসেবে এসব প্রবাসীর ১৪ দিন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা। কিন্তু বুধবার (১৮ মার্চ) পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাত্র ১৪ জনকে রাখা হয়েছে হোম কোয়ারেন্টাইনে। এদের মধ্যে ১২ জনই ইতালি থেকে এসেছেন। আর বাকি দুজন এসেছেন সৌদিআরব ও ক্রোয়েশিয়া থেকে।

পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ১ মার্চ থেকে ১৭ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাসিন্দা ৮ হাজার ৯৭৪ জন প্রবাসী বাংলাদেশে এসেছেন। ইতোমধ্যে তারা নিজ-নিজ এলাকায় অবস্থান করছেন বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এক ই-মেইল বার্তায় জানানো হয়েছে। তারা সবাই করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে ফিরেছেন বলেও ওই বার্তায় উল্লেখ করা হয়েছে।

এছাড়া দেশে আগমনের তারিখ থেকে পরবর্তী ১৪ দিন তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে পুলিশকে জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জন কন্ট্রোল অফিসের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করে হোম কোয়ারেন্টাইন বিষয়ে ও তাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের এই নির্দেশনার চিঠি জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছে জেলা পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে প্রবাসীদের একটি তালিকা এসেছে; বিগত সময়ে যারা দেশে এসেছেন। তাদের প্রতি খেয়াল রাখার জন্য বলা হয়েছে। আমরা এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।

এদিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে না থাকায় জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামে মনির হোসেন নামে এক ওমানফেরত প্রবাসীকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গত ৮ মার্চ তিনি দেশে ফেরেন। কিন্তু স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শ না মেনে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার বদলে এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন তিনি। এ খবর পেয়ে বুধবার দুপুরে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাসির উদ্দিন সারোয়ার ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ওই প্রবাসীকে পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দিয়ে তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন মো. শাহ আলম বলেন, প্রতিটি ইউনিয়নে বৃহস্পতিবার থেকে কমিটি করে দেয়া হবে। যাদের দেশে ফেরার ১৪ দিন অতিক্রম হয়ে গেছে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার দরকার নেই। যাদের অতিক্রম হয়নি তাদেরকে খুঁজে বের করে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করা হবে।

Previous articleরংপুর মেডিকেল কলেজ ৫০ বছরে পদার্পণ
Next articleমাহফিল থেকে ফেরার পথে বক্তাকে তুলে নেয়ার অভিযোগ, ৩ দিনেও মেলেনি সন্ধান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।