রংপুরে সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমুজুর ও কৃষক ফ্রন্টের ১১ দফা দাবিতে মানববন্ধন

জয়নাল আবেদীন: সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমুজুর ও কৃষক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার সকালে রংপুর প্রেসক্লাবের সামনে সংগঠনের ব্যানার প্লাকার্ডে লেখা বিভিন্ন দাবি নিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। মানব বন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে ।এসময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সদস্য ও বাসদ রংপুর জেলা আহবায়ক কমরেড আব্দুল কুদ্দুস, কৃষক ফ্রন্টের জেলা সভাপতি ও বাসদ নেতা মমিনুল ইসলাম, জেলা বাসদ সদস্য সাদেক হোসেন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ।স্মারকলিপিতে কৃষক, ক্ষেতমজুর, কৃষি, অর্থনীতি ও দেশ বাঁচাতে ১১ দফা দাবিসমূহ বাস্তবায়নে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করার দাবি জানান। এত বলা হয়েছে প্রতি ইউনিয়নে ধান ক্রয় কেন্দ্র খুলে সরকার নির্ধারিত দামে কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করতে হবে। ময়শ্চার বা ভেজা অজুহাতে কৃষকের ধান কেনা বন্ধ করা যাবে না; প্রয়োজনে খাদ্য গুদাম বা ক্রয়কেন্দ্রে ড্রায়ার মেশিনে ধান শুকিয়ে কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনতে হবে।মোট উৎপাদিত বোরো ধানের কমপক্ষে ২০% অর্থাৎ ৪০/ ৪২ লাখ টন ধান সরকারি উদ্যোগে কিনতে হবে।খাদ্য গুদামে ধারন ক্ষমতা নাই এ অজুহাতে ধান কম কেনা যাবে না, পর্যাপ্ত খাদ্য গুদাম/ সাইলো নির্মাণ করতে হবে; আপদকালীন সময়ে বেসরকারি রাইস মিল বা চাতালের গুদাম ভাড়া নিতে হবে; এমনকি ধান কিনে কৃষকের বাড়িতেও রাখা যেতে পারে। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ঋণ নয়, নগদ অর্থ সহায়তা দিতে হবে।কৃষি ঋণ প্রণোদনা প্যাকেজ সুদ মুক্ত করতে হবে; বর্গাচাষী, ভূমিহীন ও ক্ষুদ্র চাষীদের ঋণ প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে নীতিমালা পরিবর্তনকরতেহবে।ভূমিহীন, ক্ষেতমজুর ও ক্ষুদ্র চাষীদের জন্য নগদ অর্থ সহায়তা ও আর্মি রেটে গ্রামীণ রেশনিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে। ভিজিএফ, ভিজিডিসহ সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির বরাদ্দের পরিমাণ ও সংখ্যা বাড়াতে হবে।দশ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ সুদসহ মাফ করতে হবে। কৃষকের নামে দায়েরকৃত সার্টিফিকেট মামলা ও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা প্রত্যাহার করতে হবে। এনজিও ঋণের কিস্তি আদায় ছয় মাস বন্ধ রাখতে হবে। এছাড়াও ত্রাণের চাল-ডাল-তেল চুরি, দুর্নীতি, দলীয়করণ বন্ধ করতে হবে; চোরদের শুধু বরখাস্ত নয় গ্রেপ্তার, বিচার ও তাদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার দাবি জানানো হয়েছে ।