১৪মে সাঁথিয়ার বাউশগাড়ী-ডেমরা গণহত্যা দিবস

আব্দুদ দাইন: ১৪মে পাবনার সাঁথিয়ায় বাউশগাড়ী-ডমরা গণহত্যা দিবস । পাবনা জেলার সাঁথিয়া উপজেলার শেষ সীমানা এবং বনওয়ারী নগর ফরিদপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা বাউশগাড়ী-ডেমড়া। এ গ্রাম দুটোয় রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের সময় কালের লোমহর্ষক গণহত্যার ইতিহাস। ১৯৭১সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এলাকাটি নিরাপদ ভেবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বহু হিন্দু মুসলমান ধনাঢ্য ব্যবসায়ী গ্রাম দ’ুটিতে আশ্রয় নেয়। এ খবর দালালদের মাধ্যমে পাকসেনাদের কানে পৌঁছে যায়। ১৪ মে‘৭১ ৩০ বৈশাখ শুক্রবার ভোররাতে পাকসেনারা তৎকালীন আলবদর,আল শামসদের সহযোগিতায় স্থানীয় দোসর আসাদ রাজাকারের নেতৃত্বে ডেমরা গ্রামে ঢুকে পড়ে। তারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে হিন্দু মুসলমানদের ধরে নিয়ে আসে। বিভিন্ন জায়গায় সারিবদ্ধ করে প্রায় ২’শ ৫০ জন হিন্দু ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ,মুসলমানাসহ প্রায় ১হাজার ৫’শ স্থানীয় গ্রামবাসীকে হত্যা করে। পাশ^বর্তী বাউশগাড়ী গ্রামে ঢুকে প্রায় ৮’শ নিরীহ গ্রামবাসীকে পাকসেনারা সারিবদ্ধ লাইন ধরে দাড় করে ব্রাশ ফায়ার করে নিষ্ঠুর ও নির্মমভাবে নির্বিচারে হত্যা করে। সেই সাথে তারা এই এলাকায় ব্যাপক লুটতরাজ ও নারী ধর্ষণ করে। স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা গেছে, উত্তরাঞ্চলের দ্বিতীয় বৃহৎ গণহত্যা চালায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ডেমড়া-বাউশগাড়ী গ্রামে। ডেমড়ার গণকবর এখনও পর্যন্ত চিহ্নিত করা হয়নি। যা দেখে নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে এ স্থানের নৃংশস হত্যাকান্ডের কাহিনী । ডেমড়াতে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়েছে। বাউশগাড়ী গণকবরটি চিহিৃত হয়েছে অনেক আগেই এবং সেখানে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে। আজ ১৪মে(বৃহস্পতিবার)স্থানীয় সংসদ সদস্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ্যাডঃ শামসুল হক টুকু বাউশগাড়ীতে ৩৫লাখ টাকা ব্যয়ে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করবেন। প্রতি বছর স্থানীয়

জনগণ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও বেদনাময় দিবস পালন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান করে থাকেন।