ছেলের মরদেহসহ মা'কে বাস থেকে নামিয়ে দেয়া 'অমানবিক' ঘটনায় সেই বাসটি জব্দ

শফিকুল ইসলাম: ছেলে মারা যাওয়ার পর গভীর রাতে ছেলের মরদেহসহ মাকে জোর করে বাস থেকে নামিয়ে সড়কের পাশে ফেলে যাওয়া দুরপাল্লার পরিবহনের সেই বাসটি জব্দ করা হয়েছে। জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থানা পুলিশ বাগজানা এলাকা থেকে বাসটি জব্দ করে থানায় আনা হয়েছে। তবে বাসের চালক ও সহকারীকে আটক করতে পারেনি। মঙ্গলবার গভীর রাতে ছেলের মরদেহসহ বৃদ্ধা মাকে জোর করে রাস্তায় নামিয়ে দেওয়ার অমানবিক ঘটনায় সমালোচনার ঝড় বইছে। পাশাপাশি লকডাউনের মধ্যে ঢাকা থেকে বাসটি সুদুর পথ পাড়ি দিয়ে জয়পুরহাটে আসায় সড়কের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তদারকির বিষয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বুধবার রাতে আহাদ পরিবহনের বাসটি জব্দ করার ঘটনাটি পাঁচবিবি থানা পুলিশের ফেসবুকে স্ট্যাটাস
দিয়েছে।
জানতে চাইলে পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনছুর রহমান আহাদ পরিবহনের বাসটি জব্দ করার তথ্যের নিশ্চিত করেছেন। ওসি বলেন, দূরপাল্লার আহাদ পরিবহনের বাসটি পাঁচবিবিতে উপজেলার বাগজানা এলাকা থেকে জব্দ করা হয়েছে। বাসটি থানায় আনা হয়েছে। বাসেরচালক ও সহকারী পলাতক থাকায় তাঁদের আটক করা যায়নি বলে তিনি জানিয়েছেন।
প্রত্যক্ষর্দশী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দিবাগত রাতে ঢাকা থেকে নওগাঁগামী আহাদ পরিবহনের বাসটি যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসে। ওই বাসটিতে অতিরিক্ত টাকায় টিকিট কিনে অসুস্থ ছেলে মিজানুর রহমানকে সঙ্গে নিয়ে তাঁর মা সোহাগী বেগম বাড়িতে আসছিলেন। বাসের ভেতর ঘুমের ঘোরে অসুস্থ মিজানুর রহমান মারা যান। বাসেরচালক ও সহকারীকে মিজানুর রহমানের মা তাঁর ছেলের মৃত্যুর ঘটনাটি জানান। বিপদে পড়া অসহায় মাকে গন্তেব্য পৌঁছে না দিয়ে বাসচালক ও তাঁর সহকারী জয়পুরহাট-বগুড়া আঞ্চলিক মহাসড়কের জয়পুরহাট সদর উপজেলা হিচমি বাজারের সড়কের পাশে ছেলের মরদেহসহ বৃদ্ধা মাকে জোর করে নামিয়ে দিয়েছিল। বৃদ্ধা মা তাঁর ছেলের লাশ নিয়ে গন্তব্যে যাওয়ার জন্য বাসেরচালক ও সহকারীর কাছে অনেক অনুয়-বিনয় করেছিলেন। এতে বাসচালক ও সহকারীর মন গলেনি। সড়কের পাশে বৃদ্ধা মা তাঁর ছেলের একাই পাহারা দিচ্ছিলেন। করোনা সংক্রামক ভেবে কেউই লাশের ধারের কাছেও যাইনি। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত মা তাঁর ছেলের লাশের পাশে বসে বিলাপ করছিলেন। কিন্তু গন্তেব্য পৌঁছানো জন্য কেউই প্রথমে এগিয়ে আসেননি। দূর থেকে তাঁরা ছেলের লাশ নিয়ে বৃদ্ধা মায়ের বিলাপ করার দৃশ্য দেখেছেন। পরে লোকজন ঘটনাটি স্থানীয় প্রশাসনকে জানান। মঙ্গলবার সকাল সাতটার পর জয়পুরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিল্টন চন্দ্র রায় স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। তাঁরা নিহত ব্যক্তি ও তাঁর মায়ের নমুনা সংগ্রহ করেন। এরপর প্রশাসনের সহযোগীতায় ছেলের লাশসহ বৃদ্ধা মাকে নওগাঁর ধামইরহাটের জাহানপুরে গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। বাসচালক ও সহকারীর এই অমানবিক আচরণে লোকজন ক্ষুব্ধ হন। জয়পুরহাট পুলিশ সুপারের নির্দশে দূরপাল্লার আহাদ পরিবহনের বাসটির খোঁজে মাঠ নামে পুলিশ। পাঁচবিবি থানা পুলিশ মঙ্গলবার রাতে বাগজানা এলাকা থেকে আহাদ পরিবহনের বাসটি জব্দ করে। বাসেরচালক ও সহকারী আগেই পালিয়ে যাওয়ায় তাঁদের আটক করতে পারেনি পুলিশ।
জয়পুরহাট আদালতের সরকারি কৌঁসুলী (পিপি) নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন, ছেলের মরদেহসহ বৃদ্ধা মাকে গভীর রাতে রাস্তার পাশে জোর করে নামিয়ে দিয়েছেন। এটি অমানবিক ঘটনা।
জয়পুরহাট সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মিল্টন চন্দ্র রায় বলেন, মিজানুর রহমানের মা আমাকে জানিয়েছে তাঁর ছেলে হৃদরোগে ভূগছিলেন। মিজানুর তাঁকে সঙ্গে নিয়ে সোমবার রাতে আহাদ পরিবহনের বাসে চড়ে বাড়ি ফিরছিলেন। বাসের ভেতর ঘুমের ঘোরে তাঁর ছেলে মারা যান। বাসচালক ও সহকারী ছেলের মরদেহসহ তাঁকে হিচমি বাজারের সড়কের পাশে নামিয়ে দিয়ে দ্রুত বাসটি এলাকা ত্যাগ করে। আমি সকালে ঘটনাটি জানার পরপরই ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন মৃত ব্যক্তি ও তাঁর মায়ের নমুনা সংগ্রহ করেছে। মা তাঁর ছেলের লাশটি বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে। আমি ধামইরহাট উপজেলা প্রশাসনেক বিষয়টি জানিয়েছি। এরপর লাশটি বাড়িতে পাঠানো ব্যবস্থা করা হয়।
পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনছুর রহমান বলেন, আহাদ পরিবহনের বাসটি উপজেলার বাগজানা এলাকা থেকে জব্দ করা হয়েছে। বাসেরচালক ও সহকারীকে পাওয়া যায়নি।
আন্তঃ জেলা ও উপজেলা লকডাউন করেছে জেলা প্রশাসন। বিজ্ঞপ্তি তে স্পষ্ট বলা হয়েছে এক জেলা ও উপজেলা মানুষ অন্য জেলা -উপজেলা চলাচল নিষিদ্ধ করা হলো। তাহলে আহাদ পরিবহনের বাসটি জয়পুরহাটে আসল কিভাবে এমন প্রশ্নে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।