সাপাহারে জোর করে এক কৃষকের ধান কেটে নিয়েছে প্রতিপক্ষ

বাবুল আকতার: নওগাঁর সাপাহার উপজেলার সীমান্তবর্তী সরলী গ্রামের মাঠে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন কর্তৃক এক কৃষকের প্রায় দুই বিঘা জমির পাকা ধান জোর পুর্বক কেটে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় থানায় দাখিলকৃত অভিযোগ পত্র সুত্রে জানাগেছে পার্শ্ববর্তী পাতাড়ী গ্রামের বাসিন্দা মৃত: মেহেরউল্লাহ মুন্সীর ছেলে মোঃ ওবাইদুর রহমান প্রায় দুই বছর পুর্বে সরলী মৌজায় অবস্থিত প্রায় ৫৮ শতক ধানী জমি বামনপাড়া গ্রামের কলিমুদ্দীনের কন্যা মঞ্জুয়ারা বেগমের নিকট থেকে ক্রয় করে ভোগ দখল করে আসছিলেন। উক্ত সম্পত্তির মালিকানা বিষয়ে একই গ্রামের সালেকুর রহমান দিং এর সাথে মঞ্জুয়ারা বেগমের বিবাদ চলছিল। মঞ্জুয়ারা বেগম প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে আদালতে নিষেধাজ্ঞার মামলা দায়ের করেছেন যা বর্তমানে বিদ্যমান রয়েছে। তা সত্বেও ঘটনার দিন গত ১৪ মে সকাল ৭ টার সময় প্রতিপক্ষের প্রায় ১০/১২জন লোক অবৈধ ভাবে ওই সম্পত্তিতে প্রবেশ করে জমির ধান কাটতে থাকে। এ সংবাদ পেয়ে জমির মালিক ওবাইদুর রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে ধান কাটতে নিষেধ করেন। এ সময় প্রতি পক্ষরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে কাস্তে দিয়ে কুপিয়ে হত্যার হুমকী দিয়ে পিছনে পিছনে ধাওয়া করে। নিরুপায় হয়ে কৃষক ওবাইদুর সেখান থেকে পালিয়ে আত্ম রক্ষা করেন। প্রতিপক্ষের লোকজন প্রকাশ্য ওই জমির সমুদয় ধান কেটে নিয়ে যায়।্ধসঢ়;এ ঘটনায় ওই কৃষকের প্রায় ৪০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে দাবী করছেন। এ বিষয়ে কৃষক ওবাইদুর রহমান স্থানীয় থানায় প্রতিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। অপর দিকে প্রতিপক্ষের সালেকুর রহমানের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে বিবাদমান ওই সম্পত্তি তারা কলিমুদ্দীনের নিকট থেকে ক্রয় করে দীর্ঘদিন ধরে চাষাবাদ করে ভোগ দখল করছেন। সেদিন তারা নিজের জমির ধান কেটেছেন। তাদের

বিরুদ্ধে বাদীর যে অভিযোগ তা সত্য নয় বলেও জানান। এ বিষয়ে দায়িত্বে নিয়োজিত পুলিশের এস আই মানিক হোসেন এর সাথে কথা হলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।