সিরাজগঞ্জে ৩৫ হাজার পরিবারের পাশে ৩ বিশ্বাস

মারুফা মির্জা: বেলকুচির কামারপাড়ার বাড়িটির ৩ জনই জনপ্রতিনিধি। একজন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, একজন পৌর মেয়র ও আরেক জন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক মন্ত্রী ৭৩ বছর বয়স্ক বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ লতিফ বিশ্বাসের উৎখান জনগণের ভালবাসার উপর ভিত্তি করে। ১৯৮৪ সালে জেলার দৌলতপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বচিত হবার পর উন্নয়ন এবং জনকল্যানে নিবেদিত মানুষটিকে পরে জনগন উপজেলা চেয়ারম্যান, ২ বার এমপি এবং মন্ত্রীর আসনে সম্মানিত করেছে। জনপ্রতিনিধির প্রতিটি ধাপ পেড়োনো লতিফ বিশ্বাস বর্তমানে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তার স্ত্রী বেগম আশানুর বিশ্বাস বেলকুচি পৌর মেয়র এবং ছেলে আশিকুর রহমান লাজুক বিশ্বাস বেলকুচির দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। এ ৩ জন চলমান করোনা কালে শেখ হাসিনার নির্দেশে অসহায়দের পাশে রয়েছেন নিবেদিত হয়ে। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত তহবিল, সরকারী বরাদ্ধ এবং নিজেদের ব্যক্তিগত অর্থায়নে এই সংকটে জেলার অভাবী প্রায় ৩৫ হাজার পরিবারের কাছে আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধি হিসেবে তারা বিশ্বাসের মর্যাদা রেখেছেন। তাদের রাজনৈতিক সামাজিক ভাবে সচেতন মহল করোনা বীর হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। জানা যায়, করোনা ভাইরাস সংক্রামন ঠেকাতে গত ২৪ মার্চ থেকে লকডাউন ঘোষনার পর থেকে কর্মহীন হয়ে পড়ে শ্রমজীবি মানুষ। তাদের মাঝে দেখা দেয় অভাব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় নেতা-কর্মী, জনপ্রতিনিধিদের এসব অসহায় মানুষকে সহযোগীতার আহবান জানালে জনবান্ধব লতিফ বিশ্বাস তার পুরো পরিবার ও আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের নিয়ে সক্রিয় ভাবে মাঠে নেমে পড়েন। বাড়িয়ে দেন সহায়তার হাত। প্রথমটা শুরু করেন জেলা জুড়ে মাস্ক, সাবান বিতরনের মধ্যে দিয়ে। এরপর একের পর এক শুরু হয় খাদ্য সামগ্রী বিতরন। লকডাউনের পর থেকে তিনি জেলা পরিষদের উদ্যোগে ১০ হাজার এবং ব্যক্তিগত ভাবে ১০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেছেন। এছাড়া ৩৫ লাখ টাকা নিজ থেকে অসহায়দের মাঝে সহায়তা দিয়েছেন। একই ভাবে তার স্ত্রী বেলকুচির পৌর মেয়র বেগম আশানুর বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ৩ হাজার ৬৫০ পরিবারকে চাল ও ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা এবং ব্যক্তিগত ভাবে নগদ ৫ লাখ টাকা ও ২ হাজার পরিবারের মাঝে বিতরন করেছেন। এছাড়া তার ছেলে বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান লাজুক বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ৫ হাজার ১৬০ পরিবারকে চাল, নগদ ২ লাখ ৩৩ হাজার টাকা এবং নিজ উদ্যোগে ৪ লাখ টাকা এবং ব্যক্তিগত ভাবে ৪শ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেছেন। সব মিলিয়ে এই জনপ্রতিনিধি পরিবারটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত করোনা কালে প্রায় ৩৫ হাজার পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা বেলকুচি, এনায়েতপুর, চৌহালী সহ পুরো জেলার মানুষকে এই সহায়তা দিয়েছে। এ ব্যাপারে লতিফ বিশ্বাস বলেন, আমরা জনগনের ভালবাসায় পরিবারের ৩ জনপ্রতিনিধি। জনগনের কাজ করেই দিন-রাত কাটাই। অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর মাঝেই আমরা আত্তার তৃপ্তি খুঁজে পাই। করোনার এই সময়ে বৃদ্ধ হয়েও বাড়িতে বসে থাকতে পারিনি। মানুষের ভালবাসার মায়ায় আমি, স্ত্রী সন্তান সহ দলীয় নেতা-কর্মী নিয়ে মাঠে রয়েছি।