সুন্দরগঞ্জে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর শ্লীলতাহানি

আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক ছাত্রী প্রেম নিবেদন প্রত্যাখান করায় মারাত্মকভাবে শ্লীলতাহাণি ঘটানোর মামলায় মারুফুল ইসলাম মারু (২৭) নামে এক বখাটেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (২৮ মে) বিকেলে মারুফুল ইসলাম মারুকে আদালতে পাঠানো হয়। বখাটে মারু উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের তালুক সর্বানন্দ গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের পুত্র। সে বুধবার দুপুরে বাড়ি সংলগ্ন রাস্তায় বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রীকে প্রকাশ্যে মারপিট করে হত্যার উদ্যোশে গলা চেপে ধরে মারাত্মকভাবে শ্লীলতাহাণি ঘটায়। এসময় প্রতিবেশীরা মারুকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ্দ করেন। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রী একই গ্রামের আব্দুল মান্নান মাষ্টারের মেয়ে। সে দিনাজপুর হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজী বিভাগে স্নাতকোত্তর পরীক্ষার্থী। এছাড়া, আসামী মারুর চাচাতো বোন। এব্যাপারে শ্লীলতাহাণির স্বীকার (ভিকটিম) জানান, দীর্ঘদিন ধরে তার জেঠাতো ভাই মারু তাকে নানাভাবে উত্যোক্ত করে আসছিল। তার ভায়ে সে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই বেশীর ভাগ সময় অবস্থান করছিল। মারু সেখানেও মাঝে মাঝে গিয়ে উত্যোক্ত করার ব্যাপারে ইতঃপূর্বে কয়েকদফা পারিবারিকভাবেই শাসানো হয়েছে। তবুও বিরত না থেকে মারু ঐ ছাত্রীকে প্রেম নিবেদনে বাধ্য করানোর অপচেষ্টা অব্যাহত রাখে। বর্তমানে বিরাজমান করোনা পরিস্থিতিতে ঐ ছাত্রী নিজ বাড়িতেই অবস্থান করলেও মারুর ভয়ে শয়ন ঘরের বাইরে বের হয়নি। গত বুধবার (২৭ মে) অন্যান্য ভাইবোনদের সঙ্গে বাড়ির বাইরে বের হলেই ওঁৎ পেতে থাকা মারু ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে (ঐ ছাত্রীকে) এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনার পর মারুর পিতা দেলোয়ার হোসেন, বড় ভাই আশরাফুল ইসলামসহ অন্যান্যরা এসে মারুকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে তখন থেকে নানাভাবে বিভিন্ন ধরণের কঠোর হুমকি-ধামকী প্রদান করছে। ফলে, পরিবার পরিজন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে ঐ ছাত্রী, তার মা ও বাবা আব্দুল মান্নান জানান। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও থানার এসআই আবুল কালাম জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। মামলা তদন্তাধীন রয়েছে। ভিকটিম ও তার পরিবারের প্রতি কোন রকম হুমকি-ধামকী, ভয়-ভীতি প্রদানের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সুন্দরগঞ্জে জুয়াড়ির কারাদণ্ড আবু বক্কর সিদ্দিক, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কাজী লুতফুল হাসান ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে শাহীন মিয়া (৩৮) নামে এক জুয়াড়ির ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেছেন। জানা যায়, শুক্রবার বিকেলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এ আদেশ প্রদান করেন। দণ্ডিত জুয়াড়ি হলেন গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার নলডাঙ্গা ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের পুত্র। এরআগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের সাহাবাজ গ্রামে (মতিন বাজার) প্রকাশ্যে জুয়া খেলার সময় জুয়াড়ি শাহীন মিয়াকে আটক করেন। ভ্রাম্যমান আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে অন্যান্য জুয়াড়িরা পালিয়ে যায়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কাজী লুতফুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।