ব্যাংক ঋণ পাইয়ে দেওয়ার নামে প্রতারণা, থানায় অভিযোগ

হুমায়ুন কবির: নেত্রকোনা জেলার অগ্রণী ব্যাংক কেন্দুয়া শাখা থেকে প্রান্তিক কৃষকদের ঋণ পাইয়ে দেয়ার নামে প্রতারণা করে টাকা আত্মসাৎ করায় প্রতারক চক্রের এক ব্যাক্তির বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন এক কৃষক।

প্রান্তিক বেশ কয়েকজন কৃষকের পক্ষে উপজেলার চিরাং ইউনিয়নের কাশীপুর গ্রামের সফর উদ্দিনের ছেলে ঋণ গ্রহীতা বাচ্চু মিয়া নামে একজন কৃষক অভিযোগটি দায়ের করেন।

কেন্দুয়া থানার ওসি মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কৃষক লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন,একই ইউনিয়নের মৃত অালীম উদ্দিনের ছেলে রুস্তুম অালী অগ্রণী ব্যাংক কেন্দুয়া শাখা হইতে এলাকার বেশ কয়েক জন প্রান্তিক কৃষককে কৃষি ঋণ পাইয়ে দিয়ে মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ করেছেন।
গত ২৮ এপ্রিল রুস্তুম অালী এলাকার বেশ কয়েক জন কৃষককে অগ্রণী ব্যাংকে অাসতে বলেন এবং ব্যাংকের ক্যাশ থেকে প্রতি কৃষক চেক এর মাধ্যমে ৮হাজার ৭হাজার টাকা করে উত্তোলন করেন।
পরে কৃষকগন উক্ত টাকা নিয়ে ব্যাংকের নিচে অাসলে রুস্তুম অালী ঋণ গ্রাহিতাদের কাছ থেকে অর্ধেক টাকা নিয়া যায়।
এছাড়াও অভিযোগে আরো জানা যায়, প্রান্তিক কৃষকের কৃষি ঋণের পরিমাণ কারো কারো নামে ২৯হাজার অাবার কারো নামে ১৭-১৮হাজার দেখানো হলেও তারা পেয়েছে ৭-৮হাজার টাকা করে।

এ নিয়ে এলাকার প্রান্তিক কৃষকদের জনমনে প্রশ্ন দেখা দিলে তারা থানায় লিখিত অভিযোগ করতে বাধ্য হন বলে জানিয়েছেন কৃষক বাচ্চু মিয়া।

এছাড়াও কৃষি ঋণ গ্রহীতা অাল অামিন, সাইফুল ইসলাম, অাজিজুল সহ বেশ কয়েক জানান,
চিরাং ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা মাঠ কর্মী কেন্দুয়ার অগ্রহী ব্যাংক শাখার সাইফুল ইসলামের যোগসাজশে একই ইউনিয়নের বাসিন্দা রুস্তম আলী অামাদের ঠকিয়ে টাকা আত্মসাৎ করেছে।

এ বিষয়ে মাঠ কমী সাইফুল ইসলাম বলেন,অামার বিরুদ্ধে অানিত অভিযোগ মিথ্যা অামার সাথে রুস্তুম অালীর কোন যোগসাজশ নেই।

অামি ঋন গ্রহীতাদের ভোটার অাইডি কার্ড ছবি সংগ্রহ করে ঋণ এর জন্য ম্যানেজার স্যারের কাছে প্রাস্তাব পাঠাই এর বেশি কিছু অামি জানিনা।

এ ব্যাপারে রুস্তুম অালী বলেন,টাকা অামি নিয়েছি তবে ঋণের অর্ধেক না।
এই ৪ থেকে ৫শত করে কয়েক জন দিয়েছে। যেহেতু অামি কষ্ট করে তাদের ঋণের ব্যাবস্থা করে দিয়েছি তাই তারা খুশি হয়ে কিছু দিয়েছেন।

অগ্রণী ব্যাংকের কেন্দুয়া শাখার দায়িত্বে থাকা ম্যানেজার এনামুল হক তালুকদার জানান, এত নবায়ন কৃত ঋণ।
তাছাড়া কাগজ পত্র মাঠ কর্মী তৈয়ার করেছে অামি সাক্ষর দিয়েছি।
এছাড়া কৃষকগন তাদের নিজ নিজ নামে চেকের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করেছেন। বাহিরে কি হয়েছে তা অামি জানিনা।

Previous articleডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর স্ত্রী ও ছেলেও করোনায় আক্রান্ত
Next articleকালকিনিতে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় তিনজনকে কুপিয়ে জখম
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।