মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে যুবলীগ নেতা আটক

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের নাগরপুরে চোরাই মোটরসাইকেলসহ এক যুবলীগ নেতাকে আটক করেছে নাগরপুর থানা পুলিশ।

শুক্রবার রাতে উপজেলার মোকনা বাজার বনিক সমিতির অফিসের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক আনিসুর রহমান আনোয়ার উপজেলার কোনড়া গ্রামের মৃত দলিল উদ্দিনের ছেলে। তিনি মোকনা ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। তার বিরুদ্ধে মানব পাচার বিষয়ে একটি অভিযোগ রয়েছে বলেও পুলিশ জানিয়েছে।

জানা যায়, আনোয়ার দীর্ঘদিন ধরে মানবপাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। বিদেশে পাঠানোর নাম করে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে টাকা নেওয়া এবং বিদেশে লোক পাঠিয়ে সেখানে তাকে নির্যাতন করে দেশে তার ওই লোকের পরিবারের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

মোকনা ইউনিয়নের কোনড়া গ্রামের রহিমা বেগম নামের এক নারী নাগরপুর থানায় গত শুক্রবার এমন একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

তিনি অভিযোগে জানিয়েছেন, তার স্বামী নূর মোহাম্মদকে গত বছরের ডিসেম্বরে আনোয়ার সৌদি পাঠান। পাঠানোর পর পরিবারের সঙ্গে নূর মোহাম্মদ কোনো যোগাযোগ করেননি। হঠাৎ দুই মাস পর বাড়িতে ফোন করে বলেন- আনোয়ারের লোকজন আমাকে সৌদিতে একটি ঘরে বন্দি করে নির্যাতন করছে। আনোয়ারকে ১০ লাখ টাকা দিতে হবে। টাকা না দিলে আমাকে তারা মেরে ফেলবে। তারপর থেকেই নূর মোহাম্মদের সাথে পরিবারের যোগাযোগ নেই। তিনি বেঁচে আছেন না মেরে ফেলা হয়েছে এ নিয়ে পরিবারের লোকজন শঙ্কিত। পরে এ নিয়ে আনোয়ারের সাথে এলাকায় সালিশি বৈঠকও হয়েছে। আনোয়ার বলেছেন টাকা দিলেই তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে।

অভিযোগ পাওয়ার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাগরপুর থানা পুলিশ শুক্রবার রাতে উপজেলার মোকনা বাজারে অভিযান চালিয়ে বনিক সমিতির অফিসের সামনে থেকে আনোয়ারকে আটক করে।

এ সময় তার কাছ থেকে একটি চোরাই ১০০সিসি বাজাজ ডিসকভার মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

পরে নাগরপুর থানার সহকারী উপপরির্দশক (এএসআই) জহিরুল আলম বাদী হয়ে আনোয়ারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। শনিবার তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

নাগরপুর উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ভক্তগোপাল রাজবংশী পিন্টু সাংবাদিকদের বলেন, ব্যক্তির অপরাধ দল বহন করবে না। বিষয়টি জানার পর সাংগঠনিকভাবে তাকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

নাগরপুর থানার উপপরির্দর্শক নূর মোহাম্মদ জানান, আনোয়ারের বিরুদ্ধে মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে মামলা হয়েছে। মানবপাচারের অভিযোগটি তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযোগের সত্যতা পেলে তার বিরুদ্ধে মানবপাচারের মামলা করা হবে এবং ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হবে।