যশোরে ৩ কিশোর নিহতের ঘটনায় তত্ত্বাবধায়কসহ ৫ জন গ্রেফতার

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন কিশোর নিহতের ঘটনায় ওই কেন্দ্রের সহকারী তত্ত্বাবধায়ক মাসুম বিল্লাহ, সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মাসুদসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার অন্যরা হলেন- ওই কেন্দ্রেরই প্রবেশন অফিসার মুশফিকুর রহমান, শরীরচর্চা শিক্ষক ওমর ফারুক ও কারিগরি শিক্ষক শাহানুর আলম।

শুক্রবার রাতে নিহত বন্দি কিশোর রাব্বির পিতা রোকা মিয়া বাদী হয়ে যশোর কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের অজ্ঞাতনামা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আসামি করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর রকিবুজ্জামান এ মামলায় ৫ জন গ্রেফতার করার কথা নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে শুক্রবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কেন্দ্রের ১০ কর্মকর্তা, কর্মচারী ও আনসার সদস্যকে পুলিশ ডেকে এনেছিল। ওই ১০ জনের মধ্যে থেকে এই ৫ জনকে গ্রেফতার দেখানো হলো।

বৃহস্পতিবার যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে নির্মম পিটুনিতে সেখানে বন্দি তিন কিশোর মারা যায়। আহত হয় আরও ১৪ কিশোর। আহতদের যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় কেন্দ্রের কর্মকর্তারা প্রথমে বলেছিলেন, বন্দি কিশোররা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে মারামারি করায় ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে। কিন্তু পরে জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের শীর্ষ কর্তকর্তারা সেখানে গিয়ে ভিন্ন ঘটনা জানতে পারেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কিশোররাও গণমাধ্যমের কাছে অভিযোগ করে যে, কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাই তাদের পিটিয়ে হতাহত করেছেন।