জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর সাময়িক বরখাস্ত

শফিকুল ইসলাম: অপরাধমূলক ও জনস্বার্থের পরিপন্থী কার্যক্রমের অভিযোগে জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার বড়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু রাশেদ আলমগীরকে চেয়ারমানের পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের ইপি-অধিশাখার উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ইউপি চেয়ারম্যান আবু রাশেদ আলমগীর ওর্য়াড কমিটিকে পাশ কাটিয়ে ভিজিডির উপকারভোগীর তালিকা প্রস্তুত করেছেন। তিনি যাচাই-বাছাই না করেই উপজেলার অনুমোদন ছাড়াই দশটি কার্ডে নাম কর্তন করে নতুন ব্যক্তিদের নাম অন্তভূক্ত করেন। তিনি নিয়মবর্হিভূতভাবে ক্ষেতলাল পৌরসভা এলাকার দুই জন নারীকে ভিজিভি কর্মসূচির অন্তভূক্ত করে চাল বিতরণ করেছেন। উপকারভোগী নাছিমা বেগমের তাঁর স্বামীর সঙ্গে তালাক হয়েছে। অথচ তাঁর স্বামী আব্দুর রশিদকে ১৬ মাস ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ করেছেন। এসব অভিযোগ তদন্ত প্রমাণিত হওয়ায় জয়পুরহাটের জেলা প্রশাসক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সুপারিশ করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠান। এরপর মন্ত্রণালয় ইউপি চেয়ারম্যান আবু রাশেদ আলমগীরের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নিয়েছে।
বড়াইল ইউপির চেয়ারম্যান আবু রাশেদ আলমগীর বলেন, আমি সাময়িক বরখাস্তের আদেশ পেয়েছি। তবে কিভাবে কি হলো সেটি বুঝতে পারছি না।