স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ফায়ারম্যান গ্রেফতার, স্ত্রীর দাবি ষড়যন্ত্র

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নীলফামারীর সৈয়দপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ফায়ার সার্ভিসে কর্মরত এক ফায়ারম্যানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ফায়ারম্যানের নাম আবু সাঈদ ওরফে সবুজ (৩২)। শনিবার সন্ধ্যায় সৈয়দপুর থানা পুলিশ জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ কল পেয়ে তাকে গ্রেফতার ও ভিকটিম ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে রাতে মেয়েটির বাবা একটি মামলা দায়ের করেছেন।

আসামি সবুজ পূর্ব বোতলাগাড়ি গ্রামের ওয়াপদা নতুন হাটে মৃত আইয়ুব আলীর ছেলে এবং তিনি রংপুরের তারাগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে ফায়ারম্যান হিসেবে কর্মরত।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সৈয়দপুর উপজেলার বোতলাগাড়ি ইউনিয়নের একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীতে পড়ুয়া ওই স্কুলছাত্রীকে বিভিন্ন সময় অভিযুক্ত সবুজ উত্যক্ত করতো। গত শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) ওই স্কুলছাত্রী ঢেলাপীর গ্রামের পুলপাড়াস্থ বড় বোনের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বড় বোন ইপিজেডে শ্রমিকের কাজে ও অটোচালক দুলাভাই বাইরে যাওয়ার সুযোগে বিকেলের দিকে আসামি সবুজ কৌশলে ওই বাড়িতে যায়। এ সময় স্কুলছাত্রীকে একা পেয়ে বিয়ের মিথ্যে প্রলোভন দেখিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। পরে ভিকটিমের বড় বোন বাসায় ফিরলে আসামিকে ঘরের মধ্যে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার করলে গ্রামের লোকজন সবুজকে আটক করে। পরে জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল করে পুলিশের হাতে তুলে দেয় সবুজকে।

এদিকে অভিযুক্ত সবুজের স্ত্রী শিউলি বেগম সাংবাদিকদের বলেন, আগে থেকে পরিচিত হওয়ায় বিপদ-আপদে আমরা তাদেরকে (মেয়ের পরিবারকে) সাহায্য-সহযোগিতা করতাম। আমার স্বামীকে মোবাইল ফোন করে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। আমি এটার সঠিক তদন্ত চাই।

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর থানার ওসি আবুল হাসনাত খান জানান, মেয়েটির বাবা নিজে মামলাটি দায়ের করেছেন। আসামিকে রোববার আদালতে পাঠানো হবে। অপরদিকে ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে।