বিয়ের পর হঠাৎ পাগলামি: অতঃপর ১৫ বছর শিকলবন্দী

তাবারক হোসেন আজাদ: মোঃ ইউসুফ (৩৫) । দিনমজুর কাজ করতেন। বিয়ে করার পর সে মানষিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। এঅবস্থায় তাকে ছেড়ে চলে যান স্ত্রী। মানুষের সাথে বিবাদ করায় গত ১৫ বছর ধরে শিকলে বন্দী অবস্থায় দিন কাটছে তার। উন্নত চিকিৎসা না করতে পেরে শিকলে বেঁধে রেখেছেন তার পিতা-মাতা।

মানবেতর জীবন যাবন করা ইউসুপ লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সমসেরাবাদ গ্রামের কমর উদ্দিন বেপারী বাড়ির দিনমজুর বাবুলের বড় ছেলে। তিন ভাই-বোনদের মধ্যে মোঃ ইউসুফ সকলের বড়।

ইউসুপের মা আমেনা বেগম জানান, বিয়ের পর থেকেই হঠাৎ মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে ইউসুফ। এ অবস্থায় তার স্ত্রী অন্য ছেলেকে বিয়ে করে চলে যায়। কারণে অকারণে ইউসুফ স্থানীয়দের সঙ্গে বিবাদ করায় গ্রামের মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। টাকার অভাবে তার চিকিৎসাও করতে পারছেন না। প্রায় সময় সে ঘর থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসে না। বাধ্য হয়ে ইউসুফকে বাড়ির একটি কক্ষে শিকলে বেঁধে রাখতে হচ্ছে। গত ১৫টি বছর এভাবে বন্ধি শিকলে জীবন পার হচ্ছে।

ইউসুফের পিকা মোঃ বাবুল জানান, সংসার চালাতে দিনমজুরের কাজ করছি। সংসারেই ঠিকমত চলে না- ছেলের চিকিৎসা ও ওষুধ চালাবো কিভাবে-? ছেলের চিকিৎসা করাতে কয়েক লাখ টাকা খরছ হয়ে গেছে। আমি আর পারছি না। লোক মারফতে জানতে পেরেছি সরকার নাকি শত ভাগ প্রতিন্ধী ও মানসিক রোগীদের ভাতার কার্ড দেয়, আমি কয়েকবার আবেদন করেও পাইনি। ভাতা কার্ডটি পেলে কিছু ওষুধ কিনতে পারতাম।

লক্ষ্মীপুর ওয়ার্ড নারী কাউন্সিলর হাছিনা আক্তার বলেন, সাংবাদিকে মাধ্যমে খবর পেয়ে ইউসুফকে দেখে আসছি। তাকে শিকলে বন্ধী রাখা হয়েছে। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে পাগল অবস্থায় শিকলে বন্দী রয়েছেন। প্রতিবন্ধী কার্ড পাওয়ার জন্য ব্যবস্থা করে দেয়া হবে।