বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চাঁদপুরের রাতে ঘরে ঢুকে এক যুবককে গলা কেটে হত্যা করে স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ ১০ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় অন্য ঘরে বেঁধে রাখা হয় বৃদ্ধা মাকে। পুলিশ বলছে, এ হত্যাকাণ্ড রহস্যজনক।

বাধ মানছে না অশ্রু, সন্তানকে হারিয়ে কিছুতেই থামছে না বৃদ্ধা মায়ের আহাজারি। একই অবস্থা পরিবারের অন্য সদস্যদেরও।

হাজীগঞ্জ পৌরসভার টোরাগড় এলাকার ভাড়া বাসায় বৃদ্ধা মা রূপবান বানু, ছোটভাইয়ের স্ত্রী মাহমুদাকে নিয়ে থাকতেন মজনু মিয়া। মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) সকালে তাদের চিৎকার শুনে প্রতিবেশিরা বাসায় গিয়ে দেখেন মজনুর মা বাঁধা অবস্থায় এবং ঘরের জিনিসপত্র ওলটপালট। সামনের কক্ষের বিছানার ওপর পড়ে আছে মজনুর গলাকাটা মরদেহ। স্বজনদের দাবি, গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছে।

মজনু মিয়ার ভাই বলেন, মার হাত পা বাঁধা অবস্থায় ছিল, ঘরে রাখা টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার ছিল সব নিয়ে গেছে। কিছু দিন আগে একটা গাড়ি বিক্রি করেছে ১০ লাখ ৬০ হাজার বা ৬১ হাজার টাকা। ওই টাকাটা গতকাল রাতে বাসায় নিয়ে এসেছিল, ওই টাকাসহ সব কিছু নিয়ে গিয়েছে।

হত্যার খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ কর্মকর্তা ছাড়াও পিবিআইয়ের কর্মকর্তারা।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মো.আব্দুর রহীম বলেন, সবকিছু বিবেচনা করে এ হত্যাকাণ্ডটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। নিরবিচ্ছিন্ন তদন্ত করে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে আমাদের সবোর্চ্চ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবো।

নিহত মজনু মিয়া অবিবাহিত ছিলেন। মাইক্রোবাস চালক ছিলেন তিনি।