তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে সরকারি খালে নির্মিত পাকা সিঁড়ি ভাংচুর করে স্থানীয় লোকজন। রাস্তার কাজ শেষে ফেলে যাওয়া ঠিকাদারের মাটি নিলেন মসজিদ কমিটি। কিন্তু এসব গঠনায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ চার ব্যবসায়ীকে আসামী করে ইউএনও, এসিল্যান্ড ও ওসির কাছে অভিযোগ করেন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। এ নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, উপজেলা স্কাউট দল, স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী, মসজিদ কমিটি ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে গত তিন দিন ধরে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর)-উপজেলার চরআবাবিল ইউপির ক্যাম্পেরহাট এলাকার চরআবাবিল এসসি উচ্চ বিদ্যালয় ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংযুক্ত মাঠ এলাকায়। চরআবাবিল এসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিজয় চন্দ্র কিত্তনিয়া দায়ের করা অভিযুক্তরা-হলেন, দক্ষিন চরআবাবিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা স্কাউট লিডার জহির আলম, ক্যাম্পেরহাট বাজার ব্যবসায়ী পাঙ্গাসিয়া গ্রামের ইব্রাহিম মৈশাল, ব্যবসায়ী একই গ্রামের রোমান হোসেন ও মধ্যম গাইয়ারচর গ্রামের মোঃ ফজলু। রোববার (২০ ডিসেম্বর) সরজমিন-জানাযায়, প্রায় ২০ বছর আগে সাবেক জেলা প্রশাসকের অনুদানে স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের ব্যবহারের জন্য সরকারি খালের উপর জেলা পরিষদের অর্থায়নে-একটি ঘাটলা করে দেয়া হয়। ২০১৮ সালের ৫ ফেব্রুয়ারী ওই সিড়ি ঝুকিপুর্ণ হওয়ায় তা স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ভেঙ্গে ফেলেন। কিন্তু প্রধান শিক্ষক বিজয় কিত্তনিয়া লক্ষাধিক টাকার রড ও ইটগুলো নিয়ে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থসহ ওই স্থানে নীজের ইচ্ছেমত তিনটি দোকান নির্মানের প্রস্তুতি চলে বলে ইউএনও’র মাধ্যমে তা বন্ধ করে দেয়। এঘটনার পর গত এক বছর ধরে হিন্দু পক্ষ, স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী, মসজিদ কমিটি ও প্রাথমিক স্কুল কমিটির সদস্যদের মধ্য ক্ষোভ বিরাজ করছিলো। গত শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) সকালে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে এক ঠিকাদারের রেখে যাওয়া মাটির কিছু মাটি কেটে নেয় মসজি কমিটি। কিন্তু প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ তিন ব্যবসায়ীকে সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করে তাদের পরিচয় গোপন রেখে নীজেদের লক্ষাধিক মাটি রাতের আধাঁরে কেটে নিয়ে যায় বলে ইউএনও,এসিল্যান্ড ও ওসির কাছে লিখিত অভিযোগ করেন এসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিজয় কিত্তনিয়া। ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিলে ১৩ ডিসেম্বর স্কুল সভাপতি লক্ষ্মীপুর আদালতের এডভোকেট আব্দুল মান্নান মুন্সির সভাপতিত্বে বৈঠক হয় এবং রেজুলেশন করে তা ইউপি চেয়ারম্যান, ইউএনও, এসিল্যান্ড ও ওসিকে লিখিত অভিযোগে জানানো হয়েছে। এঘটনা চরআবাবিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা স্কাউট লিডার জহির আলম সহ ব্যবসায়ীরা জানান, এঘটনা সম্পর্কে আমরা কিছুই জানিনা। মন্দিরের সামনে একটি মসজিদ রয়েছে তা উচ্ছেদের পায়তারা করছে স্থানীয় হিন্দুরা। মসজিদের জন্য সরকারি খালে জেলা পরিষদের উদ্যোগে ঝুকিপুর্ণ সিঁড়ি ভেঙ্গে ফেলে সেখানে তিনটি দোকান নির্মানের প্রস্তুতি নেয়া হয়। কিন্তু প্রধান শিক্ষক বিজয় কিত্তনিয়ার বাঁধার কারনে তা বন্ধ রয়েছে। তার স্ত্র্#ী৩৯;কে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক জহির আলমের স্থলাবিসিক্ত করার জন্য মিথ্যা অভিযোগে চরম হয়রানি করছে। এঘটনায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সভাপতি, মাধ্যমিক বিদ্যালয় সভাপতি, ব্যবসায়ী সমিতির নেতারা, মসজিদ কমিটি সভাপতি ও হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা পরস্পরবিরোধি বক্তব্য দেন। রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিন চৌধুরী মোবাইল ফোনে জানান, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে মাটি লুট ও হত্যার হুমকির বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন প্রধান শিক্ষক। তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleরায়পুরে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দিয়েছেন আবর্তন
Next articleসাংবাদিক প্রদীপ অধিকারীর ভাইয়ের পরোলক গমন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।