তাবারক হোসেন আজাদ: খানাখন্দে ভরপুর ও ভাঙাচোরা সড়কের নাম লক্ষ্মীপুরের দালাল বাজার-মীরগঞ্জ সড়ক। দীর্ঘদিন ধরে এ রাস্তাটি ভাঙাচোরা। এতে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। সড়কের খানাখন্দ গুলোই মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। পুরো সড়ক জুড়ে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত। উঠে গেছে পিচ ও খোয়া। তবুও গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। সড়কটি দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় সড়কের এমন বেহাল দশা। ফলে প্রতিদিন যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বেহাল অবস্থার কারণে সড়কে গাড়ি চলে হেলেদুলে। এতে প্রায় ৯ কিলোমিটারের রাস্তা পার হতে সময় লাগে এক ঘণ্টার মতো। এছাড়া অনেকে ভোগান্তি এড়াতে প্রায় ১৮ কিলোমিটার ঘুরে কালিবাজার সড়ক হয়ে লক্ষ্মীপুরে যান।

এলাকাবাসীর কাছে এ সড়ক এখন আতঙ্ক হয়ে দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন, সড়কটিতে মাজা (কোমর) ভাঙার দশা। মাসের পর মাস পেরিয়ে গেলেও এ অবস্থা থেকে তারা নিস্তার পাচ্ছে না।

চৌধুরী বাজার ব্যবসায়ী ও এলাকার বাসিন্দা সিপন মিয়া বলেন, দালাল বাজার-মীরগঞ্জ রোডের পুরো সড়কই এখন বেহাল। কিছুক্ষন হাটলে সুস্থ লোকও অসুস্থ হয়ে যায় এই সড়কে।।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, গত পাঁচ বছর আগে সড়কটির দালাল বাজার থেকে কাপিলাতলী পর্যন্ত সাত কিলোমিটার রাস্তার উন্নয়ন কাজ করা হয়। এর তিন বছর পর বাকি অংশ (কাপিলাতলী-মীরগঞ্জ) উন্নয়ন করা হয়।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর)-সরেজমিনে গিয়ে সড়কটির গঙ্গাপুর, নন্দনপুর, চৌধুরী বাজার, মোল্লাপুল, কাজিরদিঘীর পাড় ও কাপিলাতলী গিয়ে সড়কের বেহাল চিত্র দেখা গেছে। পিচ ও খোয়া উঠে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত তৈরি হয়েছে। দুর্ঘটনা এড়াতে যানবাহন চলছে ধীরগতিতে। তবে কাপিলাতলী থেকে মীরগঞ্জ পর্যন্ত মোটামুটি চলাচল যোগ্য।

কয়েকজন সিএনজি চালক বলেন, রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে প্রতিদিন কেউ না কেউ দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। গর্তে পড়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে গাড়ির বিভিন্ন যন্ত্রাংশ।

বামনী ইউপি চেয়ারম্যান তাফাজ্জল হোসেন ও হামছাদী ইউপি চেয়ারম্যান এমরান হোসেন নান্নু সাংবাদিকদের বলেন, এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন দুই উপজেলার মানুষ জেলা শহরে যাতায়াত করে। দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় সড়কটি এখন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই সিএনজিতো দূরের কথা পায়ে হেঁটে যাওয়াও কষ্টকর হয়ে যায়। ফলে দুর্ভোগ বাড়ছে রাস্তার দুপাশের বাসিন্দাদের। কয়েকদিন আগেও দালালবাজারে সমাজ সেবক আবুল কাশেমের উদ্যোগে স্বেচ্ছাশ্রমে কিছে অংশে ইট-বালু দিয়ে মেরামত করা হয়েছে। দুই জনপ্রতিনিধি সড়কটি দ্রুত সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন।

লক্ষ্মীপুর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (সওজ) সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী আনোয়ার পারভেজ বলেন, দালাল বাজার-মীরগঞ্জ সড়কের তিন হাজার ২০০ মিটার উন্নয়ন কাজের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যে কাজ শুরু হবে। যাতে ব্যয় হবে দুই কোটি টাকা। তবে বরাদ্দ কম হওয়ায় পুরো রাস্তার কাজ একসঙ্গে করা যাচ্ছে না।