বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়ার নন্দীগ্রামের কুন্দারহাট এলাকায় এক যুবককে বন্ধুরা মদ্যপ অবস্থায় ট্রাকের নিচে ফেলে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (২ জানুয়ারি) গভীর রাতে আনোয়ার হোসেন বুলু (৩৮) নামে ওই যুবক মারা যান। নিহত বুলু নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার জাতআমরুল গ্রামের মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে।

এ ঘটনার পর রোববার (৩ জানুয়ারি) সকালে এ হত্যাকাণ্ডের দুই সহযোগী আরিফুল ও ইসলাম হোসেনকে আটক করে নন্দীগ্রাম থানায় সোপর্দ করেছে নিহতের পরিবার।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, শনিবার রাতে বুলু ও তার সাত বন্ধু মাইক্রোবাস করে আত্রাই থেকে বগুড়ার হোটেল নাজ গার্ডেনে মদপান করে বগুড়া-নাটোর সড়ক হয়ে আত্রাইয়ের উদ্দেশে রওনা হন। পথে নন্দীগ্রামের কুন্দারহাট নামক স্থানে নিজেদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এ সময় বুলু মাইক্রোবাস থামিয়ে সড়কে নেমে তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে বন্ধুরা বুলুকে ধাক্কা দিয়ে চলন্ত ট্রাকের নিচে ফেলে দেয়। এতে ট্রাকচাপায় বুলু ঘটনাস্থলেই মারা যান।

পরে তারা বুলুর মরদেহ মাইক্রোবাসে তুলে আত্রাই নিয়ে যান। সেখানে পাঁচজন নিজ নিজ বাড়িতে চলে যান এবং আরিফুল ও ইসলাম বুলুর মরদেহ বাড়িতে পৌঁছে দিতে গেলে পরিবারের সন্দেহ হলে তাদের আটক করে পুলিশে দেয়।

বুলুর ভাই মাজাহারুল ইসলাম অভিযোগ করেন, বুলু মাইক্রোবাসটি চালাচ্ছিলেন। তিনি দুর্ঘটনায় মারা গেলে মাইক্রোবাস ক্ষতিগ্রস্ত হত। তাকে হত্যা করা হয়েছে।

নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।